শুক্রবার,  ৭ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ,  ২৪শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ,  রাত ১:৫০

আত্মসমর্পণ করছে ইয়াবা সম্রাট হাজি সাইফুল

ফেব্রুয়ারি ১২, ২০১৯ , ২০:৫৮

বিশেষ প্রতিনিধি টি.এম গোলাম মোস্তফা
আত্মসমর্পণ করতে যাচ্ছে দেশের ইয়াবা ব্যবসার ‘সম্রাট’ হিসেবে পরিচিত টেকনাফের হাজি সাইফুল করিম । দেশব্যাপী ইয়াবা ছড়িয়ে দেয়া সাইফুল করিমের আত্মসমর্পণের ব্যাপারে এতোদিন ধোঁয়াশা থাকলেও পুলিশের হাতে তার আত্মসমর্পণ করা অনেকটাই নিশ্চিত হওয়া গেছে। এরইমধ্যে আত্মসর্মপণের সকল প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হচ্ছে বলে জানান কক্সবাজার জেলা বিশেষ পুলিশ কর্মকর্তা।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে ওই কর্মকর্তা বলেন, আগামী ১৬ ফেব্রুয়ারি (শনিবার) টেকনাফে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের হাতে এই ইয়াবা সম্রাট আত্মসমর্পণ করবেন বলে পুলিশ সূত্র নিশ্চিত করেছে। এরইমধ্যে সাইফুল করিমের সিন্ডিকেটের অন্যতম দুই সদস্য তার শ্যালক জিয়াউর রহমান ও আবদুর রহমানও আত্মসমর্পণের জন্য পুলিশের হেফাজতে রয়েছেন।

দেশের সর্বত্র মরণ নেশা ইয়াবা ছড়িয়ে দেয়ার নেপথ্যে রয়েছেন দেশের শীর্ষ ইয়াবা ব্যবসায়ী সাইফুল করিম ও তার পরিবারের ১০ সদস্যের ভয়াবহ সিন্ডিকেট। পুলিশ প্রশাসন আশা করে, সাইফুলের পরিবারের ( ইয়াবা সিন্ডিকেট) সকলেই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে আত্মসর্মপণ করবেন।

পুলিশ প্রশাসনের দেয়া তথ্য মতে, এক সময় ছাত্রদলের রাজনীতি করা সাইফুল ও তার পরিবারের সদস্যরা চট্টগ্রামে অবস্থান করে সারা দেশের ইয়াবা নিয়ন্ত্রণ করছেন। একটি প্রভাবশালী মহলের ছত্রছায়ায় হাজি সাইফুল ও তার পরিবার বহাল তবিয়তে থেকে ইয়াবা ব্যাবসা নিয়ন্ত্রণ করছিল। প্রশাসন ও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কিছু সাবেক শীর্ষ কর্মকর্তার পরোক্ষ সহযাগিতা পেয়ে সাইফুল করিম ও তার পরিবার এ কাজ করে আসছিলো বলে অভিযোগ রয়েছে। শুধু তাই নয়, সরকারের বিভিন্ন বাহিনীর সমন্বয়ে করা ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সর্বশেষ তালিকায় শীর্ষ ইয়াবা ব্যবসায়ী হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে টেকনাফের শীলবনিয়া পাড়ার এই সাইফুল করিমকে।

সাইফুল করিম সারাদেশে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের কাছে ‘এসকে’ নামেই পরিচিত। তালিকায় দেখা গেছে, শীর্ষ ইয়াবা ব্যবসায়ী সাইফুল করিম এবং তার ভাই রেজাউল করিম, রফিকুর করিম, মাহাবুবুল করিম ও আরশাদুল করিম সারাদেশে বড় ইয়াবা সিন্ডিকেট গড়ে তুলেছেন।

সাইফুল করিমের দুই শ্যালক টেকনাফ বিএনপির নেতা জিয়াউর রহমান ও শ্রমিক দলের নেতা আবদুর রহমানও এই সিন্ডিকেটের সঙ্গে জড়িত। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ইয়াবার গডফাদারের তালিকায় এই দুইজনের নামও রয়েছে। সাইফুল করিমের ভগ্নিপতি সাইফুল ইসলামও এই ইয়াবা সিন্ডিকেটের সঙ্গে জড়িত।

গোয়েন্দা সংস্থার সূত্রে জানা গেছে, সাইফুল নিজেকে টেকনাফ বন্দরের আমদানি-রফতানিকারক বলে পরিচয় দেন। তার বৈধ ব্যবসার সাইনবোর্ডের নাম এসকে ইন্টারন্যাশনাল। কিন্তু গত ৯-১০ বছর ধরে সাইফুল ও তার পরিবারের সদস্যরা এখন অবৈধভাবে হাজার কোটি টাকার মালিক। সাইফুল করিমের ইয়াবা সিন্ডিকেটের মূলশক্তি হিসেবে রয়েছে তার মামা, মিয়ানমারে মংডুর আলী থাইং কিউ এলাকার মোহাম্মদ ইব্রাহিম।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তালিকায় দেখা গেছে মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে ইয়াবা পাঠান সাইফুলের মামা ইব্রাহিম ও তার অন্য সহযোগীরা। সাইফুল ও তার পরিবারের সদস্যরা মিয়ানমার থেকে এই ইয়াবা এনে সারা দেশে পাচার করেন।

অভিযোগ উঠেছে, এই কালো টাকা দিয়ে সাইফুল তার ভীত অনেক শক্তিশালী করেছেন। হাত করেছেন অনেক বড় বড় রাজনীতিবিদ ও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অনেক শীর্ষ কর্মকর্তাকে।

জানা গেছে, সাইফুল করিম বিয়ে করেছেন টেকনাফের সবচেয়ে প্রভাবশালী বিএনপির রাজনীতিবিদ আবদুল্লাহের ছোট বোনকে। সাইফুলের শ্যালক জিয়াউর রহমান উপজেলা বিএনপির সাবেক যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক এবং গত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী ছিলেন। অপর শ্যালক আবদুর রহমান উপজেলা শ্রমিক দলের নেতৃস্থানীয় পর্যায়ে রয়েছেন।

মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের সর্বশেষ যে তালিকায় বলা হয়েছে, সাইফুল করিম স্থানীয়ভাবে বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। তবে বিপুল সম্পদের মালিক হওয়ায় তিনি অর্থ দিয়ে সংশ্লিষ্ট সবাইকে নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করেন। তিনি চট্টগ্রামের ভিআইপি টাওয়ারে অবস্থান করেন। চট্টগ্রামের টেরিবাজারে বিনয় ফ্যাশন নামের একটি কাপড়ের দোকানের আড়ালে তার পরিবারের সদস্যরা ঢাকা ও চট্টগ্রামে ইয়াবা পাচার করেন।

এ বিষয়ে কক্সবাজারে পুলিশ সুপার মাসুদ হোসেন জানান, তালিকাভূক্ত অধিকাংশই ইয়াবা ব্যবসায়ী শর্তসাপেক্ষে আত্মসমর্পণের ইচ্ছে প্রকাশ করেছে। আত্মসমর্পণের দিন তালিকাভুক্ত বড় বড় ইয়াবা ব্যবসায়ী আত্মসমর্পণ করবেন বলে তিনি নিশ্চিত করেছেন।

Total View: 542

    আপনার মন্তব্য





সারাদেশ

কক্সবাজার

কিশোরগঞ্জ

কুড়িগ্রাম

কুমিল্লা

কুষ্টিয়া

খাগড়াছড়ি

খুলনা

গাইবান্ধা

গাজীপুর

গোপালগঞ্জ

চট্টগ্রাম

চাঁদপুর

চাঁপাইনবাবগঞ্জ

চুয়াডাঙা

জয়পুরহাট

জামালপুর

ঝালকাঠী

ঝিনাইদহ

টাঙ্গাইল

ঠাকুরগাঁও

ঢাকা

দিনাজপুর

নওগাঁ

নড়াইল

নরসিংদী

নাটোর

নারায়ণগঞ্জ

নীলফামারী

নেত্রকোনা

নোয়াখালী

পঞ্চগড়

পটুয়াখালি

পাবনা

পিরোজপুর

ফরিদপুর

ফেনী

বগুড়া

বরগুনা

বরিশাল

বাগেরহাট

বান্দরবান

ব্রাহ্মণবাড়িয়া

ভোলা

ময়মনসিংহ

মাগুরা

মাদারীপুর

মানিকগঞ্জ

মুন্সিগঞ্জ

মেহেরপুর

মৌলভীবাজার

যশোর

রংপুর

রাঙামাটি

রাজবাড়ী

রাজশাহী

লক্ষ্মীপুর

লালমনিরহাট

শরীয়তপুর

শেরপুর

সাতক্ষীরা

সিরাজগঞ্জ

সিলেট

সুনামগঞ্জ

হবিগঞ্জ

Flag Counter