মঙ্গলবার,  ১১ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ,  ২৮শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ,  সকাল ৮:০৪

এখনও উদ্ধার হয়নি ধ্বসে পড়া ট্রান্সফরমারসহ ট্রাকটি

এপ্রিল ২৯, ২০১৮ , ১৯:০৭

স্টাফ রিপোর্টার
শরীয়তপুরের তুলাসার-আড়িগাঁও ব্রীজের একটি অংশ ট্রান্সফরমারসহ ট্রাক ধ্বসে পড়ায় এক সপ্তাহ উত্তীর্ণ হলেও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দায়িত্বে অবহেলার কারণে এখনও উদ্ধার হয়নি ট্রান্সফরমারসহ ট্রাকটি।

ফলে দুর্ভোগে পড়েছে তুলাসার ইউনিয়নসহ আশেপাশের কয়েকটি ইউনিয়নের হাজার হাজার মানুষ। গত শুক্রবার রাত ৩ টার দিকে পল্লী বিদ্যুতের ট্রান্সফরমারবাহী একটি ট্রাক ব্রীজটি দিয়ে পারাপারের সময় ব্রীজের বেইলী অংশটি পুরোপুরি ধ্বসে পড়ে।

আর এই দুর্ভোগের নেপথ্যে রয়েছে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের দায়িত্বে অবহেলা আর পল্লী বিদ্যুতের খাম খেয়ালীপনা। এদিকে ফায়ার সার্ভিস বলছে, এতো ভারী জিনিস তোমার মতো যন্ত্রাংশ তাদের নেই। তাই অযত্ন আর অবহেলায় পারে রয়েছে এ রাষ্ট্রীয় সম্পদ।

২০১৬ সালে ব্রীজের এ্যাপ্রোচ সড়ক নদীতে বিলীন হয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর ব্রীজটি সংস্কারে স্থায়ী কোনো পদক্ষেপ করেনি। আর ব্রীজে ৫ টনের বেশি মালামাল নিয়ে উঠা নিষেধ হলেও তা উপেক্ষা করে ট্রাকে করে ২০ টনের অধিক ওজনের ট্রান্সফরমার নিয়ে পার হওয়ার চেষ্টা করে পল্লী বিদ্যুতের লোকজন। তাদের এ দায়িত্বহীনতার কারণে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে এলাকার সাধারণ মানুষকে।

এ বিষয়ে শরীয়তপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জেনারেল ম্যানেজার সোহরাব হোসেন বলেন, ট্রাক ড্রাইভার ভুল করে ঐ পথে গিয়েছিল। ঠিকাদারের অসতর্কতার কারণে এ ঘটনা ঘটেছে। আমরা ঢাকা থেকে বড় ক্রেন আনার চেষ্টা করেছি। আশা করি, খুব তাড়াতাড়ি ব্রীজ থেকে ট্রাক এবং ট্রান্সফরমার সরিয়ে নিতে পারবো।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ২০০৮ সালে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর শরীয়তপুর সদর উপজেলার তুলাসার, বিনোদপুর, মাহমুদপুর, চন্দ্রপুর এবং ডোমসার ইউনিয়নসহ পার্শ্ববর্তী জেলা মাদারীপুরের শিবচর উপজেলার যোগাযোগ সহজ করার জন্য তুলাসার-আড়িগাঁও এলাকার উপর দিয়ে প্রবাহিত কীর্তিনাশা নদীতে একটি ব্রীজটি নির্মাণ করেন।

এ ব্রীজটি নির্মাণের ফলে তুলাসার ইউনিয়নসহ আশেপাশের বেশ কয়েকটি ইউনিয়নের প্রায় ২৫ হাজার মানুষ ব্রীজটির উপর দিয়ে জেলা সদরে যাতায়ত করে। সেতুর একটি অংশ ধ্বসে পড়ায় এখন ভোগান্তিতে পাড়েছে এ অঞ্চলের মানুষ।

তাৎক্ষণিক ভাবে নদী পারাপারের জন্য নৌকার ব্যবস্থা করা হলেও নৌকায় ওঠার জন্য অনেক সময় অপেক্ষা করতে হচ্ছে। এছাড়া নৌকায় মানুষ ছাড়া অন্য কিছু পার করা সম্ভব হচ্ছে না।

২০১৬ সালের ১অক্টোবর নদী ভাঙ্গনের কারণে ব্রীজটির আড়িগাঁও প্রান্তের এ্যাপ্রোচ সড়কের ১০ মিটার অংশ ভেঙ্গে গেলেও স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর ব্রীজটি সচল করতে স্থায়ী ও কার্যকর কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করেনি। তখন জনদুর্ভোগ এবং ব্যবসায়ীক অসুবিধার কথা চিন্তা করে স্থানীয় ইটভাটা ব্যবসায়ীরা মাটি ভরাট করে ব্রীজটি চলাচলের উপযোগী করেন।

২০১৭ সালে পুণরায় ঐ অংশ ভেঙ্গে পড়ে। পরবর্তীতে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর ঐ অংশে একটি বেইলী সেতু স্থাপন করে ব্রীজটি অস্থায়ীভাবে সচল করে। কিন্তু দুই বছর উত্তীর্ণ হলেও ব্রীজটি স্থায়ীভাবে সচল করতে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করেনি।

স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের সদর উপজেলা প্রকৌশলী তৈয়বুর রহমান বলেন, নদী ভাঙ্গনের কারণে ব্রীজটির একটি অংশ ঝুঁকিপূর্ণ ছিল। এ কারণে ৫ টনের অধিক যানবাহন না ওঠানোর অনুরোধ ছিল। আমরা সাইনবোর্ড ঝুলিয়ে দিয়েছিলাম। কিন্তু পল্লী বিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষ ট্রাকে করে ৫০ টন ওজনের ট্রান্সফরমার নিয়ে ব্রীজটি পার হওয়ার চেষ্টা করলে এ দূর্ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর শরীয়তপুরের নির্বাহী প্রকৌশলী এ.কে.এম বাদশা বলেন, নদী ভাঙ্গনের কারণে ব্রীজটির এ্যাপ্রোচ বিলীন হয়েছে। ঐ অংশে ভাঙ্গন প্রতিরোধ করার জন্য পানি উন্নয়ন বোর্ডকে অনুরোধ করা হয়েছে। ভাঙ্গন রোধে ব্যবস্থা না নেয়া পর্যন্ত আমাদের স্থায়ী কিছু করার সুযোগ নেই। আপাতত ব্রীজ থেকে ট্রাক ও ট্রান্সফরমার সরিয়ে নেয়ার পর আমরা নতুন করে আর একটি বেইলী সেতু তৈরি করে দেবার ব্যবস্থা করছি।

Total View: 1234

    আপনার মন্তব্য





সারাদেশ

কক্সবাজার

কিশোরগঞ্জ

কুড়িগ্রাম

কুমিল্লা

কুষ্টিয়া

খাগড়াছড়ি

খুলনা

গাইবান্ধা

গাজীপুর

গোপালগঞ্জ

চট্টগ্রাম

চাঁদপুর

চাঁপাইনবাবগঞ্জ

চুয়াডাঙা

জয়পুরহাট

জামালপুর

ঝালকাঠী

ঝিনাইদহ

টাঙ্গাইল

ঠাকুরগাঁও

ঢাকা

দিনাজপুর

নওগাঁ

নড়াইল

নরসিংদী

নাটোর

নারায়ণগঞ্জ

নীলফামারী

নেত্রকোনা

নোয়াখালী

পঞ্চগড়

পটুয়াখালি

পাবনা

পিরোজপুর

ফরিদপুর

ফেনী

বগুড়া

বরগুনা

বরিশাল

বাগেরহাট

বান্দরবান

ব্রাহ্মণবাড়িয়া

ভোলা

ময়মনসিংহ

মাগুরা

মাদারীপুর

মানিকগঞ্জ

মুন্সিগঞ্জ

মেহেরপুর

মৌলভীবাজার

যশোর

রংপুর

রাঙামাটি

রাজবাড়ী

রাজশাহী

লক্ষ্মীপুর

লালমনিরহাট

শরীয়তপুর

শেরপুর

সাতক্ষীরা

সিরাজগঞ্জ

সিলেট

সুনামগঞ্জ

হবিগঞ্জ

Flag Counter