রবিবার,  ২৫শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ,  ১০ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ,  ভোর ৫:৪৫

চুরি হয় ঢাকায়, বিক্রি হয় পাশের জেলায়

এপ্রিল ৪, ২০১৮ , ১৯:১৮

স্টাফ রিপোর্টার
ঢাকা থেকে চুরি হওয়া মোটরসাইকেল সাধারণত ঢাকার আশপাশের জেলাগুলোতে নিয়ে ভুয়া নম্বর প্লেট লাগিয়ে বিক্রি করা হয় বলে জানিয়েছেন ঢাকা মহানগর পু‌লিশের (ডিএম‌পি) গো‌য়েন্দা ও অপরাধ তথ্য বিভা‌গের (ডি‌বি) যুগ্ম কমিশনার মো. আব্দুল বা‌তেন।

৪ এপ্রিল, বুধবার দুপু‌রে ডিএম‌পি মি‌ডিয়া সেন্টা‌রে অায়োজিত এক সংবাদ স‌ম্মেল‌নে এ তথ্য জানান মো. আব্দুল বা‌তেন।

আব্দুল বা‌তেন জানান, মোটরসাই‌কেল চোর চ‌ক্রের মূল টা‌র্গেট থাকে ঢাকার বিভিন্ন মে‌ডি‌কেল ক‌লেজ এলাকায়। কারণ এসব এলাকায় মে‌ডি‌কেল রিপ্রে‌জে‌ন্টে‌টিভ‌দের মোটরসাই‌কেলসহ আরও অনেক মোটরসাই‌কেল রাখা হয়। তাই সেখান থেকে কেউ মোটরসাই‌কেল সরিয়ে নিলে অন্য কেউ তা সহজে খেয়াল কর‌তে পা‌রে না। সেই সুযোগেই চোররা অল্প সম‌য়ের ম‌ধ্যে মোটরসাই‌কেল চুরি করে নিয়ে পালিয়ে যায়। অার চুরির পরপরই তারা দ্রুত চোরাই গাড়িগুলো ঢাকার পার্শ্ববর্তী জেলা মাদারীপুর, শিবচর, শরীয়তপুর, ভ‌বেরচর, নারায়ণগ‌ঞ্জের সি‌দ্ধিরগ‌ঞ্জ পাঠিয়ে দেয়। সেসব জেলায় থাকা তাদের চক্রের অন্য সদস্যরা চোরাই মোটরসাই‌কেলগু‌লো বি‌ক্রির জন্য কাজ ক‌রে।

যুগ্ম কমিশনার দাবি করেছেন, ৩ এপ্রিল, মঙ্গলবার রা‌তভর ডি‌বির পূর্ব ও প‌শ্চিম বিভা‌গ অভিযান চালিয়ে কামরাঙ্গীরচর, নিউমা‌র্কেট, ডেমরা এলাকা থেকে ১২টি চোরাই মোটরসাই‌কেলসহ ৯ জন‌ চোরকে গ্রেফতার ক‌রেছে।

‌গ্রেফতারকৃতরা হলেন—রা‌জিব মু‌ন্সি, আব্দুর র‌হিম, জা‌কির হে‌া‌সেন ও মোক্তার হো‌সেন‌। তদন্তের স্বার্থে গ্রেফতারকৃত বাকি পাঁচ ব্যক্তির নাম প্রকাশ করেনি ডিএমপি।

আব্দুল বা‌তেন অারও জানান, গ্রেফতারকৃত‌দের জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, ‌বিআর‌টিএর কিছু অসাধু কর্মকর্তা‌র যোগসা‌জো‌শে এই চক্র‌টি চুরি করা মোটরসাই‌কেলের নতুন নম্বর প্লেট বা‌নি‌য়ে নেয়। আর সেসব নম্বর প্লেট লাগিয়ে চোররা মোটরসাইকেলগুলো বি‌ক্রি ক‌রে। ত‌বে চে‌সি‌সের নম্ব‌রের স‌ঙ্গে নম্বর প্লে‌টের কোনো মিল থা‌কে না। কারণ বেশির ভাগ সময়ে সেগুলো ভুয়া নম্বর প্লেট হয়ে থাকে। তাই কাগজপত্র যাচাই ছাড়া পুরনো মোটরসাইকেল না কেনার ব্যাপারে পরামর্শ দেন ডি‌বির এই কর্মকর্তা।

আব্দুল বা‌তেন ব‌লেন, ‘অ‌নেকেই কম দা‌মে মোটরসাই‌কেল পে‌য়েই কি‌নে ফেলেন । তাই মোটরসাই‌কেলের কাগজপত্র সঠিক কি না সেটা যাচাই ক‌রে দে‌খেন না। এমনটির ফলে ক্রেতা যেকোনো সময় আইনি জটিলতায় পড়‌তে পা‌রেন।’

এক প্রশ্নের জবাবে বাতেন জানান, বিঅারটিএর কোনো কর্মকর্তা সরাসরিভাবে এই চক্রের সঙ্গে কাজ করে কি না সেটা তদন্ত করা হচ্ছে। নাকি দালালদের মাধ্যমে এই চক্রটি ভুয়া কাগজপত্র ও নাম্বার প্লেট তৈরি করে দেয় সেটাও তদন্ত করা হচ্ছে।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, উদ্ধার করা মোটরসাইকেলগুলোর মধ্যে যদি কারো হারিয়ে যাওয়া মোটরসাইকেল থাকে তবে উপযুক্ত প্রমাণসহ যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে।

Total View: 1224

    আপনার মন্তব্য





সারাদেশ

কক্সবাজার

কিশোরগঞ্জ

কুড়িগ্রাম

কুমিল্লা

কুষ্টিয়া

খাগড়াছড়ি

খুলনা

গাইবান্ধা

গাজীপুর

গোপালগঞ্জ

চট্টগ্রাম

চাঁদপুর

চাঁপাইনবাবগঞ্জ

চুয়াডাঙা

জয়পুরহাট

জামালপুর

ঝালকাঠী

ঝিনাইদহ

টাঙ্গাইল

ঠাকুরগাঁও

ঢাকা

দিনাজপুর

নওগাঁ

নড়াইল

নরসিংদী

নাটোর

নারায়ণগঞ্জ

নীলফামারী

নেত্রকোনা

নোয়াখালী

পঞ্চগড়

পটুয়াখালি

পাবনা

পিরোজপুর

ফরিদপুর

ফেনী

বগুড়া

বরগুনা

বরিশাল

বাগেরহাট

বান্দরবান

ব্রাহ্মণবাড়িয়া

ভোলা

ময়মনসিংহ

মাগুরা

মাদারীপুর

মানিকগঞ্জ

মুন্সিগঞ্জ

মেহেরপুর

মৌলভীবাজার

যশোর

রংপুর

রাঙামাটি

রাজবাড়ী

রাজশাহী

লক্ষ্মীপুর

লালমনিরহাট

শরীয়তপুর

শেরপুর

সাতক্ষীরা

সিরাজগঞ্জ

সিলেট

সুনামগঞ্জ

হবিগঞ্জ

Flag Counter