মঙ্গলবার,  ১১ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ,  ২৮শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ,  রাত ১০:০৪

জাজিরার মুলনা ইউনিয়নে খাস জমি বন্দোবস্ত দেয়ার নামে চলছে ব্যাপক অনিয়ম

জুলাই ৩১, ২০১৯ , ১৬:৫৮

স্টাফ রিপোর্টার
শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলার মূলনা ইউনিয়নের ভূমি কর্মকর্তা মোঃ সিরাজুল ইসলামের বিরুদ্ধে খাস জমি বন্দোবস্ত দেয়ার নামে ব্যাপক অনিয়ম এবং দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। তিনি ভূমিহীনদেরকে খাস জমি বন্দোবস্ত দেয়ার কথা বলে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, জাজিরা উপজেলার মূলনা ইউনিয়নের বালিকান্দি গ্রামের ৩৬ নং চর লাউখোলা মৌজার ৩৬ একর ৮১ শতাংশ খাস জমি বন্দোবস্ত দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন সরকার। সেই সিদ্ধান্তের প্রেক্ষিতে ভূমি কর্মকর্তা মোঃ সিরাজুল ইসলাম মূলনা ইউনিয়নের বালিকান্দি গ্রামের চল্লিশ থেকে পঞ্চাশ জন ভূমিহীন পরিবারকে খাস জমি বন্দোবস্ত দেয়ার কথা বলে প্রত্যেকটি পরিবারের কাছে থেকে চল্লিশ হাজার থেকে আশি হাজার টাকা করে হাতিয়ে নিয়েছেন। তার ঘুষ বাণিজ্যের হাত থেকে রেহাই পায়নি এলাকার শারীরিক প্রতিবন্ধী, ভিক্ষুক, রিকশা চালক, ভ্যান চালক, দিন মজুর ও দরিদ্র অসহায় ভূমিহীন ব্যাক্তিরা।
৩৬ নং চর লাউখোলা মৌজার বালিকান্দি গ্রামের যে সকল খাস জমি বন্দোবস্ত গ্রহণকারী তার বিষাক্ত ছোবলের শিকার হয়েছেন তারা হলেন-মোঃ কালু বেপারী, আনিছ বেপারী, আবুল কালাম বেপারী, মোসাম্মৎ বানেছা বেগম, শারীরিক প্রতিবন্ধী রকমান সরকার, মোসাম্মৎ জরিনা বেগম, বিশাই শেখ, রিকশা চালক মোয়াজ্জেম হোসেন, আদম শেখ, জলিল শিকদার, কাদের শিকদার, মোঃ আলী শিকদার, শাহ আলম কবিরাজ, সালাম মাদবর, আবুল কালাম মাদবর, জুলহাস কাজী, আবদুল হক শিকদার, ইদ্রিস শেখ, মোছলেম কাজী, মালেক বেপারী, নুরু কাজী, মুছা সারেং, তাজেল ফকির, রহিম ফকির, কাসেম কাজী, খালেক বেপারী, শিউলী বেগম, কালাই শেখ, শামীম হোসেন, আমজাদ খালাসী, মান্নান খালাসী, সুলতান খালাসী, আদম খালাসী, কদম খালাসী, ইয়াসিন খালাসী এবং জুলহাস ফরাজীসহ আরো অনেকেই।
২৭ জুলাই শনিবার সরেজমিনে ঘুরে স্থানীয় ঐ সকল ভুক্তভোগীদের সাথে আলাপ কালে তারা বলেন, ৩৬ নং চর লাউখোলা মৌজার খাস জমি এস.এ খতিয়ানের বেশির ভাগ জমির মালিক ছিলেন বড় কৃষ্ণপুরের মাদবর পরিবার। ১৯৮০ সালে আমরা মাদবর পরিবারের কাছ থেকে দখল মূলে ক্রয় করে বসত বাড়ি তৈরী করে জীবন যাপন করে আসছি।
গত পাঁচ থেকে ছয় মাস পূর্বে মূলনা ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলাম আমাদের ঘর বাড়ি ও ফসলী জমিতে লাল নিশান উড়িয়েছেন এবং মাইকিং করে বলেছেন, সরকারি খাস জমি ছেড়ে অন্যত্র চলে যেতে। পরে ব্যাক্তি মাধ্যম আমাদেরকে তার সাথে দেখা করতে বলেছেন।
আমরা তার সাথে দেখা করতে গেলে তিনি আমাদেরকে বলেন, আমি আপনাদের নামে খাস জমি ৯৯ বছরের জন্য লিজ এনে দেবো, যদি আপনারা আমার কথা শোনেন এবং আমার কথা মতো কাজ করেন। তিনি আমাদেরকে বলেন, ২০ শতকের নিচে যাদের জমি আছে মাথাপিছু তাদের দিতে হবে চল্লিশ হাজার টাকা। ২০ শতকের উপরে যাদের জমি আছে তাদেরকে মাথাপিছু দিতে পঞ্চাশ হাজার টাকা। এই বলে আমাদের কাছ থেকে মাথাপিছু চল্লিশ থেকে পঞ্চাশ হাজার এবং কারো কাছ থেকে আশি হাজার থেকে এক লক্ষ টাকা পর্যন্ত মাথাপিছু ঘুষ নিয়েছে।
ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলামের এই দুর্নীতির দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি এবং আমাদের কাছ থেকে অবৈধভাবে যেই টাকা হাতিয়ে নিয়েছে তা ফিরিয়ে দেয়ার দাবি করছি।
এ বিষয়ে মূলনা ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলামের কাছে জানতে চাইলে তিনি বিষয়টি বিভিন্ন ভাবে এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন।
এ বিষয়ে জাজিরা উপজেলার সহকারি কমিশনার (ভূমি) কর্মকর্তা পংকজ দেবনাথের সাথে মুঠোফোনে আলাপ কালে তিনি বলেন মূলনা ইউনিয়নের ভূমি কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলামের অনিয়মের বিষয়টি আমি জানি না। আমার কাছে ঐ এলাকার কোন ব্যাক্তি মৌখিক বা লিখিত অভিযোগ করেনি।

Total View: 467

    আপনার মন্তব্য





সারাদেশ

কক্সবাজার

কিশোরগঞ্জ

কুড়িগ্রাম

কুমিল্লা

কুষ্টিয়া

খাগড়াছড়ি

খুলনা

গাইবান্ধা

গাজীপুর

গোপালগঞ্জ

চট্টগ্রাম

চাঁদপুর

চাঁপাইনবাবগঞ্জ

চুয়াডাঙা

জয়পুরহাট

জামালপুর

ঝালকাঠী

ঝিনাইদহ

টাঙ্গাইল

ঠাকুরগাঁও

ঢাকা

দিনাজপুর

নওগাঁ

নড়াইল

নরসিংদী

নাটোর

নারায়ণগঞ্জ

নীলফামারী

নেত্রকোনা

নোয়াখালী

পঞ্চগড়

পটুয়াখালি

পাবনা

পিরোজপুর

ফরিদপুর

ফেনী

বগুড়া

বরগুনা

বরিশাল

বাগেরহাট

বান্দরবান

ব্রাহ্মণবাড়িয়া

ভোলা

ময়মনসিংহ

মাগুরা

মাদারীপুর

মানিকগঞ্জ

মুন্সিগঞ্জ

মেহেরপুর

মৌলভীবাজার

যশোর

রংপুর

রাঙামাটি

রাজবাড়ী

রাজশাহী

লক্ষ্মীপুর

লালমনিরহাট

শরীয়তপুর

শেরপুর

সাতক্ষীরা

সিরাজগঞ্জ

সিলেট

সুনামগঞ্জ

হবিগঞ্জ

Flag Counter