শুক্রবার,  ৩রা জুলাই, ২০২০ ইং,  ১৯শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ,  ভোর ৫:০৬

জাজিরায় স্কুল ছাত্রকে অপহরণের পর হত্যা, লাশ উদ্ধার, আটক ২

জুন ২৭, ২০২০ , ২০:২৩

স্টাফ রিপোর্টার
শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলায় গুম হওয়া শিশুর লাশ উদ্ধার এবং গুম সন্দেহে দুই জনকে আটক করেছে জাজিরা থানা পুলিশ।

শনিবার দুপুর ১২টায় পুলিশ সুপারের কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে এ বিষয়ে একটি সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় শিশুর মৃতদেহ উদ্ধার ও আসামী গ্রেফতারের ঘটনা বিস্তারিত জানান জেলা পুলিশ সুপার জনাব এস. এম. আশরাফুজ্জামান।

ঘটনা সম্পর্কে পুলিশ সুপার জানান, মামলার বাদী কালাই মোড়লের কান্দির বাসিন্দা সালাম মাদবরের বড় ছেলে শাকিল মাদবর (১৫) স্থানীয় এ্যাম্বিশন কিন্ডার গার্টেন এন্ড হাই স্কুলের অষ্টম শ্রেণীতে লেখাপড়া করতো।

গত ২৫ জুন তারিখ বিকালে তার প্রতিবেশী সাকিব ওরফে বাবু খেলার কথা বলে পূর্ব নাওডোবা নূর জামে মসজিদের কাছে তাজেল মোড়লের মুদি দোকানের সামনে যায়।

সেখান থেকে ভ্যান যোগে পূর্ব নাওডোবা ওছিমুদ্দিন মাদবরের কান্দি ছাত্তার মাদবরের ঘাট এলাকায় নিয়া যায় তাকে। এদিকে রাত হয়ে যাওয়ার পরেও শকিল মাদবর বাড়ীতে না ফেরায় তাকে গ্রাম সহ আশেপাশে খোঁজাখুজি করে তার স্বজনরা। এ সময় সাকিব ওরফে বাবুর বাড়ীতে গিয়ে শাকিল মাদবরের বর্তমান অবস্থানের ব্যাপারে জিজ্ঞাসাবাদ করে তারা। জিজ্ঞাসাবাদের সময় সাকিব ওরফে বাবু এলোমেলো কথাবার্তা বলতে থাকে। এ সময় সাকিব ওরফে বাবু আশ্বস্ত করে বলে, শাকিলকে তো মাঝির ঘাট এলাকায় রাখিয়া আসছিলাম, এখনো বাড়ীতে আসে নাই? তাহলে কিছুক্ষণের মধ্যে চলে আসবে। পরে স্বজনরা বাড়ীতে গিয়ে ঘুমিয়ে পড়ে।

পরের দিন ২৬ জুন সকাল অনুমান সকাল ৯টায় বাদীর মেজো ভাই মোঃ শাহাজুল ইসলামের ব্যবহৃত মোবাইল নম্বারে একটি নাম্বার থেকে কল দিয়ে বলে শাকিল মাদবরকে অজ্ঞাতস্থানে আটক করে রাখা হয়েছে এবং পাঁচ লক্ষ টাকা মুক্তিপণ না দিলে তারা শাকিল মাদবরকে হত্যা করে লাশ গুম করবে এবং পরপর একাধিক মেসেজ দিতে থাকে।

তখন শাকিলের বাবা স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য সহ স্থানীয় লোকজন নিয়া সাকিব ওরফে বাবুর বাড়ীতে যায় এবং পুনরায় সাকিব ওরফে বাবুকে শাকিল মাদবরের ব্যাপারে জিজ্ঞাসাবাদ করে। তখন সাকিব ওরফে বাবু ঘটনার বিষয়ে তালবাহানার কথা বার্তা বলতে থাকে।

ঘটনার প্রেক্ষিতে ২৬ জুন বিকালে জাজিরা থানা পুলিশ সাকিব ওরফে বাবুকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করে। সকলের উপস্থিতিতে পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদের একপর্যায়ে আসামী সাকিব ওরফে বাবু স্বীকার করে বলে, শাকিল মাদবরকে সে এবং আক্তার মাদবর, সজিব মাঝি, ইমরান মোড়ল, মহসিন হাওলাদার, স্বপন সরদার পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী পরস্পরের যোগসাজশে মুক্তিপণ আদায়ের উদ্দেশ্যে অপহরণ করে।

প্রথমে অসংলগ্ন তথ্য প্রদান করলেও ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদের একপর্যায়ে স্বীকার করে, তারা শাকিল মাদবরকে হত্যা করে নির্মাণাধীন রেল সেতুর ৩৮ ও ৩৯নং পিলারের মাঝামাঝি বরাবরে পূর্বপাশে ভরাট বালু মাটির নিচে লাশ গুম করে রেখেছে। পরে ২৭ জুন রাত্র অনুমান রাত ২ টায় ভরাট বালুর নিচ হতে শাকিল মাদবরের মৃতদেহ উত্তোলন করে পুলিশ।

পরে আটক দুই আসামী সাকিব, ইমারন মোড়ল এবং আরো ৬ জনসহ অজ্ঞাত ২/৩ জনকে আসামী করে জাজিরা থানায় একটি মামলা দায়ের করে শাকিলের বাবা সালাম মাদবর। আটক আসামীদের ৭ দিনের পুলিশ রিমান্ডের জন্য আবেদন করা হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অপরাধ) মোহাম্মদ আল মামুন শিকদার, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর) তানভীর হায়দার শাওন, জাজিরা থানার অফিসার ইনচার্জ, আজহারুল ইসলাম সরকার, পিপিএম, জেলা বিশেষ শাখার ডিআইও-২ সাইফুল ইসলাম সহ শরীয়তপুর প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ।

Total View: 78

    আপনার মন্তব্য





সারাদেশ

কক্সবাজার

কিশোরগঞ্জ

কুড়িগ্রাম

কুমিল্লা

কুষ্টিয়া

খাগড়াছড়ি

খুলনা

গাইবান্ধা

গাজীপুর

গোপালগঞ্জ

চট্টগ্রাম

চাঁদপুর

চাঁপাইনবাবগঞ্জ

চুয়াডাঙা

জয়পুরহাট

জামালপুর

ঝালকাঠী

ঝিনাইদহ

টাঙ্গাইল

ঠাকুরগাঁও

ঢাকা

দিনাজপুর

নওগাঁ

নড়াইল

নরসিংদী

নাটোর

নারায়ণগঞ্জ

নীলফামারী

নেত্রকোনা

নোয়াখালী

পঞ্চগড়

পটুয়াখালি

পাবনা

পিরোজপুর

ফরিদপুর

ফেনী

বগুড়া

বরগুনা

বরিশাল

বাগেরহাট

বান্দরবান

ব্রাহ্মণবাড়িয়া

ভোলা

ময়মনসিংহ

মাগুরা

মাদারীপুর

মানিকগঞ্জ

মুন্সিগঞ্জ

মেহেরপুর

মৌলভীবাজার

যশোর

রংপুর

রাঙামাটি

রাজবাড়ী

রাজশাহী

লক্ষ্মীপুর

লালমনিরহাট

শরীয়তপুর

শেরপুর

সাতক্ষীরা

সিরাজগঞ্জ

সিলেট

সুনামগঞ্জ

হবিগঞ্জ

Flag Counter