মঙ্গলবার,  ২৪শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ,  ৯ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ,  সকাল ৯:৫৩

তৃণমূলের অভিযোগের রেশ না কাটতেই ফের অভিযোগ

ফেব্রুয়ারি ১২, ২০১৯ , ০৯:৫৪

বিশেষ প্রতিনিধি
আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে অংশগ্রহণের জন্য দলের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের থেকে একক বাছাই এরইমধ্যে এগিয়ে নিয়েছে আওয়ামী লীগ। প্রথম ও দ্বিতীয় ধাপের নির্বাচনের জন্য একক প্রার্থীর তালিকাও ঘোষণা করেছে দলটি। তবে দল থেকে মনোনয়নপত্র কেনা উন্মুক্ত করার আগে তৃণমূলের যে নেতারা দলের কেন্দ্রে অভিযোগ করেছিলেন, সেই রেশ না কাটতেই উপজেলার মনোনয়নের দুই ধাপে আরও নতুন অভিযোগ গণমাধ্যমে আসতে শুরু করে। এদিকে তৃণমূল নেতাদের অভিযোগ নিয়ে দলের কেন্দ্রের কোনো বক্তব্যও পাওয়া যায়নি। এ নিয়ে তৃণমূলের নেতাকর্মীর মধ্যে বিরাজ করছে ক্ষোভ।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, এবার উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রক্রিয়া শুরুতে দলের তৃণমূল থেকে চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান- এই ৩টি পদেই নাম চেয়েছিল আওয়ামী লীগ। এর পর থেকেই দলের কেন্দ্রে আসতে শুরু করে অভিযোগের পাহাড়। একে একে তৃণমূল থেকে কেন্দ্রে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন নিয়ে প্রায় ৭শ অভিযোগ এসেছে বলে আওয়ামী লীগের দলীয় সূত্রগুলো বলছে। কেন্দ্রে তৃণমূলের অনিয়ম-অভিযোগের কারণেই দলের মনোনয়ন প্রক্রিয়াটিই পরিবর্তন করা হয়। ফলে নতুন মনোনয়ন প্রক্রিয়ায় যে কেউ দলের উপজেলার মনোনয়ন কিনতে পেরেছে।

সেসময় অভিযোগকারীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, উপজেলায় আওয়ামী লীগের মনোনয়ন কিনতে তৃণমূলে চলেছে টাকার খেলা। তৃণমূলের মতকে তোয়াক্কা না করেই কেন্দ্রে কারসাজির মাধ্যমে নাম পাঠানো, তৃণমূলে উত্থাপিত নামকেও কারসাজির মাধ্যমে কেটে ফেলা এমন হাজারো অভিযোগ রয়েছে তাদের।

তবে নতুন মনোনয়ন প্রক্রিয়ায় মনোনয়ন কেনার পর তৃণমূলের ক্ষোভ অনেকটা প্রশমিত হয়েছে বলে জানান একজন অভিযোগকারী। মাগুরা সদর উপজেলা থেকে অভিযোগকারী ওই তৃণমূল নেতা জানান, এখন যে প্রক্রিয়ায় মনোনয়ন হচ্ছে এতে নেতাকর্মীরাও খুশি। এখন তৃণমূল নেতাদের ক্ষোভ অনেকটাই প্রশংসিত হয়েছে।

তবে তৃণমূলে এখনও ক্ষোভ বিরাজ করছে জানিয়ে দলের অপর একটি সূত্র জানিয়েছে, তৃণমূলের নেতারা এবার শুরুতে দলের মনোনয়ন নিয়ে যে ধরনের প্রতারণার শিকার হয়েছে, যেভাবে কর্মীদের মতামতকে উপেক্ষা করা হয়েছে তা কাটতে বেশ সময় লাগবে।

দলের তূণমূল সূত্রটি জানায়, মনোনয়ন বিক্রির শুরু থেকে তৃণমূলের ক্ষোভ অভিযোগ হিসেবে দলীয় সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে জমা পড়েছে। এত বিপুল সংখ্যাক অভিযোগ নিয়ে দলীয় তৃণমূল নেতাকর্মীদের মধ্যেও বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।

এসব অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে শনিবার দলীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘এটা আমাদের দলের অভ্যন্তরীণ বিষয়। আমরা ওই অভিযোগ খতিয়ে দেখবো কি না এটাও আমাদের দলের অভ্যন্তরীণ ব্যাপার।’ আওয়ামী লীগের মনোনয়ন বোর্ড সব কিছুই বিচার বিশ্লেষণ করেই দলের উপজেলা মনোনয়ন দিয়েছে বলে এসময় জানান তিনি।

এদিকে তৃণমূলের ওই অভিযোগের রেশ কাটতে না কাটতেই দুই ধাপে উপজেলা মনোনয়ন দেয়া দলের কয়েকজন প্রার্থীর নামেও অভিযোগ আসতে শুরু করেছেন। অভিযোগ রয়েছে দুই ধাপের ঘোষিত তালিকায় স্থান পেয়েছে যুদ্ধাপরাধীর আত্মীয়, স্বর্ণ চোরাচালানকারী, সরকারি চাকরিজীবী। দল থেকে গত শনিবার সকালে প্রথম ধাপের ৮৭ উপজেলার একক প্রার্থী তালিকা ও রোববার ১২২ জনের নামের তালিকা প্রকাশ করা হয়।

প্রথম ও দ্বিতীয় ধাপের জন্য যাদের মনোনয়ন দেয়া হয়েছে, তাদের মধ্যে যুদ্ধাপরাধী পরিবারের সদস্য রয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। গত শনিবার দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরে তৃণমূলের মতামতকে উপেক্ষা করে জামায়াতে ইসলামী বাংলাদেশের প্রয়াত আমির অধ্যাপক গোলাম আযমের কাছের আত্মীয়কে আওয়ামী লীগের প্রার্থী করায় সংবাদ সম্মেলন করেছেন বঞ্চিত প্রার্থীরা। ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাবের মিলনায়তনে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে নবীনগর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়নবঞ্চিত প্রার্থীরা উপস্থিত ছিলেন। সংবাদ সম্মেলনের লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, আসন্ন উপজেলা নির্বাচনে তৃণমূলের মতামতকে উপেক্ষা করে রাজাকার গোলাম আযমের কাছের আত্মীয় হাবিবুর রহমান স্টিফেনকে দলীয় প্রার্থী করতে মনোনয়ন দিয়েছে উপজেলা আওয়ামী লীগ। হাবিবুর রহমান স্টিফেন নবীনগরের বীরগাঁও গ্রামের সোনা মিয়া সরকারের ছেলে ও যুক্তরাষ্ট্রপ্রবাসী দ্বৈত ধর্মের অধিকারী বিতর্কিত ব্যক্তি।

এ দিকে প্রথম ধাপে সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলা পরিষদে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন রিয়াজ উদ্দিন রিয়াজ। তিনি গত মেয়াদেও চেয়ারম্যান ছিলেন। আওয়ামী লীগ সরকারের আমলেই তিনি বেশ কয়েক মাস জেল খেটেছেন। স্বর্ণ চোরাচালানে যুক্ত থাকার অভিযোগ তার বিরুদ্ধে। ২০১৪ সালের ২৫ ডিসেম্বর পল্টনের একটি বাসায় অভিযান চালিয়ে শুল্ক গোয়েন্দারা পাঁচ বস্তা দেশি-বিদেশি মুদ্রা ও ৬১ কেজি ওজনের ৫২৮টি সোনার বার উদ্ধার করেন। এর সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে মোহাম্মদ আলী (৫০) নামের এক ব্যক্তিকে আটক করা হয়। এ ঘটনায় শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মোস্তাফিজুর রহমান বাদী হয়ে মামলা করেন। মামলায় বলা হয়, সোনা চোরাচালানে এস কে মোহাম্মদ আলীসহ সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলা চেয়ারম্যান রিয়াজ জড়িত। পল্টন থানায় মামলাটি হয়। ২০১৬ সালের নভেম্বরে রিয়াজসহ ১২ জনকে অভিযুক্ত করে এ মামলার অভিযোগপত্র আদালতে জমা দেয়া হয়। উপজেলা নির্বাচনের দ্বিতীয় ধাপের জন্য আওয়ামী লীগের দলীয় প্রতীকের ঘোষিত মনোনয়নপ্রাপ্তদের মধ্যে বেশ কয়েকজন মাদক ব্যবসায়ী রয়েছে। ঢাকা বিভাগের ফরিদপুর জেলার বোয়ালমারী উপজেলা প্রার্থী এম এম মোশাররফ হোসেন। তার ছোট ভাই মুকুল মিয়া মাদক ব্যবসার সঙ্গে জড়িত বলে অভিযোগ রয়েছে।

জানতে চাইলে রোববার অনুষ্ঠিত দলের এক সংবাদ সম্মেলনে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, এসব অভিযোগ তদন্ত করা হবে। যদি সত্যিকার অর্থেই এসব অভিযোগের সত্যতা পাওয়া যায় তবে অবশ্যই তাদের প্রার্থিতা বাদ দেয়া হবে। তবে অভিযোগের সত্যতা কতটুকু তা আমাদের যাচাই-বাছাই করে দেখতে হবে। সরকারি চাকরিজীবী প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, আমার কথা হচ্ছে নির্বাচন কমিশনের কোনো আইনের ব্যত্যয় ঘটছে কি না। তিনি সরকারি চাকরি ছেড়ে দিয়েও তো নির্বাচন করতে পারেন।

উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন নিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, যোগ্যতার নিরিখে ও তৃণমূলে জনপ্রিয়দেরই দলীয় প্রার্থী করা হয়েছে। যাদের জয়ী হওয়ার সম্ভাবনা বেশি তাদের প্রার্থী করা হয়েছে।
সূত্রঃ দৈনিক জাগরণ

Total View: 227

    আপনার মন্তব্য





সারাদেশ

কক্সবাজার

কিশোরগঞ্জ

কুড়িগ্রাম

কুমিল্লা

কুষ্টিয়া

খাগড়াছড়ি

খুলনা

গাইবান্ধা

গাজীপুর

গোপালগঞ্জ

চট্টগ্রাম

চাঁদপুর

চাঁপাইনবাবগঞ্জ

চুয়াডাঙা

জয়পুরহাট

জামালপুর

ঝালকাঠী

ঝিনাইদহ

টাঙ্গাইল

ঠাকুরগাঁও

ঢাকা

দিনাজপুর

নওগাঁ

নড়াইল

নরসিংদী

নাটোর

নারায়ণগঞ্জ

নীলফামারী

নেত্রকোনা

নোয়াখালী

পঞ্চগড়

পটুয়াখালি

পাবনা

পিরোজপুর

ফরিদপুর

ফেনী

বগুড়া

বরগুনা

বরিশাল

বাগেরহাট

বান্দরবান

ব্রাহ্মণবাড়িয়া

ভোলা

ময়মনসিংহ

মাগুরা

মাদারীপুর

মানিকগঞ্জ

মুন্সিগঞ্জ

মেহেরপুর

মৌলভীবাজার

যশোর

রংপুর

রাঙামাটি

রাজবাড়ী

রাজশাহী

লক্ষ্মীপুর

লালমনিরহাট

শরীয়তপুর

শেরপুর

সাতক্ষীরা

সিরাজগঞ্জ

সিলেট

সুনামগঞ্জ

হবিগঞ্জ

Flag Counter