শনিবার,  ১৯শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ,  ৫ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ,  সকাল ১০:২০

ধর্ণাঢ্যরা তপনের কাছে মানবতা শিখুন

মে ৪, ২০২০ , ২১:১৪

সাংবাদিক কাজী নজরুল ইসলাম
মহামারী করোনার কারণে বিশ্বব্যাপী কর্মহীন নিন্ম আয়ের মানুষের ক্ষুধার যন্ত্রনা ক্রমশই তীব্র হয়ে উঠছে। এ অবস্থা দুনিয়ার আর সব দেশ থেকে বাংলাদেশে অধিক হওয়ার কথা। কিন্তু আমাদের সরকার, আ.লীগ, বিভিন্ন সংগঠন ও মহানুভব ব্যক্তিরা ক্ষুধার্ত মানুষদের সাধ্যমত খাদ্য সহায়তা করে চলেছেন।

এ সময় আমাদের এলাকায়ও সরকারি ত্রাণ সহায়তার পাশাপাশি আমাদের সাংসদ ইকবাল হোসেন অপু ভাই তার ব্যক্তিগত তহবিল থেকে হাজার হাজার পরিবারকে পর্যাপ্ত ত্রাণ বিতরণ করে চলেছেন। সদর উপজেলা ও পৌরসভা আওয়ামীলীগ, পৌর মেয়র রফিকুল ইসলাম কোতোয়াল, অনেক জনপ্রতিনিধি, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ, ছাত্রলীগ সহ অনেক মহানুভব ব্যক্তি ও সামাজিক সংগঠন (যেমন ফ্রেন্ডস পালং) দিনরাত মানুষের ঘরে ঘরে খাদ্য সহায়তা পৌছে দিচ্ছেন।

এমন আপদকালিন সময়ে আমাদের পৌর এলাকার দক্ষিণ-পশ্চিম অঞ্চলের সবচেয়ে ধর্ণাঢ্য ব্যবসায়িরা (সংখ্যালঘু সম্প্রদায়) যখন মানবতা থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছেন ঠিক তখনি তাদেরই এক স্বগোত্রীয় সুশিক্ষিক তরুন ব্যবসায়ী তপন মোদক মানবতার হাত বাড়িয়ে এগিয়ে এসেছেন ক্ষুধার্তদের পাশে। অপু ভাইর নির্দেশনায় তপন মোদকের সহায়তায় বিভিন্ন উপায়ে এ যাবৎ অন্তত ৫শ পরিবার পেয়েছেন খাদ্য সহায়তা। শুধু সংখ্যালঘু বা হিন্দু অসহায় পরিবারই নয় আমার জানা মতে, সম্প্রতি অন্তত অর্ধশত মুসলিম পরিবারকেও সন্তোষজনক ভাবে খাদ্য সহায়তা করেছে তপন মোদক। যতটা জানি, আরো শতাধিক পরিবারকেও সাহায্য প্রদানের পরিকল্পনা রয়েছে তার।

তপনরা কিন্তু এখন আর শরীয়তপুরের নাগরিক নেই। নিজ জন্মভূমি থেকে আমরা ওদের পরিবারটিকে উচ্ছেদ করে তাড়িয়ে দিয়েছি অনেক আগেই। বর্তমানে নারায়নগঞ্জে নানা বাড়িতে মায়ের প্রাপ্য মাত্র কয়েক শতাংশ জমিতে বসবাস করছে ওরা। স্কুল জীবন থেকেই আমাদের সাথে ছাত্রলীগ করা তপন বড় হয়েছে একটা বিশাল অভাবি পরিবারে। স্বর্ণঘোষ গ্রামে ৮৬ শতাংশ জমি নিয়ে ছিল ওদের বসত বাড়ি। ওর বাবা প্রয়াত গোপাল চন্দ্র মোদক (গোপাল কুরি) অনেক কষ্টে তার ৯ সন্তানকে উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত করাতে পারলেও নিজের বসত বাড়িটি রক্ষা করতে পারেননি। গোপাল কুরির সেজ ছেলে তপন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে উচ্চতর ডিগ্রী নিয়েও দেশে কোন সরকারি চাকুরী না পেয়ে একসময় পাড়ি জমায় ইউরোপে। সেখান থেকে পূজি নিয়ে দেশে ফিরে ব্যবসা করে কিছুটা স্বাবলম্বী হয়েছে। তপন শুধু তার জন্মস্থান মাটির টানেই দুস্থ্যদের সহায়তা করছে বলে জানিয়েছে।

এ এলাকায় আমার পরিচিত (তপনের স্বজাতি) এমন ব্যবসায়ী পরিবারও আছে, যাদের মাত্র একদিনের আয় দিয়ে এক শত অসহায় পরিবারকে কয়েক দিন খাওয়ানো যায়। কিন্তু এই মহাদুর্যোগকালিন সময়ে তারা অবগুন্ঠিত হয়ে বসে আছেন। এই দুর্দিনে কৃপণ-বখিলদের ভর্তসনা করি আর তপন মোদক সহ অন্যান্য মানবতাবাদিদের সাধুবাদ জানাই।

Total View: 167

    আপনার মন্তব্য





সারাদেশ

কক্সবাজার

কিশোরগঞ্জ

কুড়িগ্রাম

কুমিল্লা

কুষ্টিয়া

খাগড়াছড়ি

খুলনা

গাইবান্ধা

গাজীপুর

গোপালগঞ্জ

চট্টগ্রাম

চাঁদপুর

চাঁপাইনবাবগঞ্জ

চুয়াডাঙা

জয়পুরহাট

জামালপুর

ঝালকাঠী

ঝিনাইদহ

টাঙ্গাইল

ঠাকুরগাঁও

ঢাকা

দিনাজপুর

নওগাঁ

নড়াইল

নরসিংদী

নাটোর

নারায়ণগঞ্জ

নীলফামারী

নেত্রকোনা

নোয়াখালী

পঞ্চগড়

পটুয়াখালি

পাবনা

পিরোজপুর

ফরিদপুর

ফেনী

বগুড়া

বরগুনা

বরিশাল

বাগেরহাট

বান্দরবান

ব্রাহ্মণবাড়িয়া

ভোলা

ময়মনসিংহ

মাগুরা

মাদারীপুর

মানিকগঞ্জ

মুন্সিগঞ্জ

মেহেরপুর

মৌলভীবাজার

যশোর

রংপুর

রাঙামাটি

রাজবাড়ী

রাজশাহী

লক্ষ্মীপুর

লালমনিরহাট

শরীয়তপুর

শেরপুর

সাতক্ষীরা

সিরাজগঞ্জ

সিলেট

সুনামগঞ্জ

হবিগঞ্জ

Flag Counter