শুক্রবার,  ২৩শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ,  ১০ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ,  দুপুর ১:৪২

নদী শাসন প্রকল্প বাস্তবায়নের দাবীতে মানববন্ধন

মার্চ ৫, ২০১৮ , ২১:২৫

ইলিয়াছ মাহমুদ

পদ্মার ডান তীর সংরক্ষণ ও নদী শাসন প্রকল্পটি দ্রুততম সময়ের মধ্যে বাস্তবায়ন এবং আগামী বর্ষার আগেই কাজ শুরুর দাবীতে জাতীয় প্রেসক্লাবে মানববন্ধন ও প্রতীকি অনশন করেছে শরীয়তপুরের নড়িয়া ও জাজিরার উপজেলার পদ্মার ভাঙ্গন কবলিত এলাকাবাসী। ৫ মার্চ সোমবার সকাল ১০টার দিকে ঢাকাস্থ জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনের সড়কে মানববন্ধন ও প্রতীকি অনশনে অনুষ্ঠিত হয়। নড়িয়া-জাজিরার প্রায় সহস্রাধিক মানুষ এ মানববন্ধনে অংশ নেয়।

পরে দ্রুততম সময়ের মধ্যে প্রকল্পটি বাস্তবায়নের দাবী জানিয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বরাবর একটি স্মারকলিপি পেশ করা হয়।

মানবন্ধন ও প্রতীকী অনশনে বক্তব্য রাখেন, শরীয়তপুর-২ আসনের সাংসদ কর্ণেল (অবঃ) শওকত আলী, আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক এনামুল হক শামিম, আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনালের প্রসিকিউটর এ্যাডভোকেট সুলতান মাহমুদ সীমন, মুক্তিযোদ্ধা সংহতি পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মিজ মাজেদা শওকত আলী, ৭১ ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান ডা. খালেদ শওকত আলী, মর্ডান হারবাল গ্রুপের চেয়ারম্যান ডা. আলমগীর মতি, শরীয়তপুর জেলা বার কাউন্সিলের সাবেক সভাপতি এ্যাড. আবুল কালাম আজাদ, নড়িয়া পৌর মেয়র শহীদুল ইসলাম বাবু রাড়ি, মোক্তারেরচর ইউপি চেয়ারম্যান শাহ আলম চৌকিদার প্রমূখ।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, নড়িয়া-জাজিরা উপজেলা বহু বছর ধরে পদ্মা নদীর ভাঙ্গনের ফলে দু’টি উপজেলা শরীয়তপুর জেলার মানচিত্র থেকে হারিয়ে যাচ্ছে। শত শত পরিবার গৃহহীন হয়ে পড়েছে। আমরা ভাঙ্গনকবলিত এলাকাবাসী বাঁধ নির্মাণের দাবিতে বহু আন্দোলন সংগ্রামের ফলে গত ০২ জানুয়ারী একনেক সভায় বেরীবাঁধ প্রকল্প অনুমোদন দেয় সরকার। কিন্তু এখনও পর্যন্ত প্রকল্পটির দৃশ্যমান কোন অগ্রগতি নেই। দ্রুততম সময়ের মধ্যে বাধ নির্মাণ করা না হলে নড়িয়া পৌর বাজার সহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা নদী গর্ভে বিলীন হওয়ার আশংকা করছি। তাই সরকারের কাছে আমাদের দাবী, দ্রুততম সময়ের মধ্যে এ বাঁধ নির্মাণ করা হোক।

প্রসঙ্গত গত দুই বছরে পদ্মার অব্যাহত ভাঙ্গনে শরীয়তপুরের নড়িয়া ও জাজিরা উপজেলার প্রায় ৭ হাজার পরিবার গৃহহীন হয়েছে। পানি উন্নয়ন বোর্ডের তথ্যানুযায়ী বর্তমানে ভাঙ্গনের হুমকিতে রয়েছে ৮ হাজার বসত বাড়ি, ১৮৫ কিলোমিটার সড়ক, ১ কিলোমিটার সুরেশ্বর রক্ষা বাধ, ২২টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, ৫৫ মসজিদ মাদরাসা সহ প্রায় ৩ হাজার ৪২৫ কোটি টাকার সম্পদ। এ ক্ষতি এড়াতে জাজিরা-নড়িয়া পদ্মা নদীর ডান তীর রক্ষা প্রকল্প নামে একটি প্রকল্প গত ২ জানুয়ারি অনুমোদন দেয় জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক)। ১ হাজার ৯৭ কোটি টাকার এ প্রকল্পের আওতায় ৯ কিলোমিটার এলাকায় বাঁধ ও চর ড্রেজিং করা হবে। কিন্তু শুষ্ক মৌসুমে এ প্রকল্পের কোন দৃশ্যমান অগ্রগতি না হওয়ায় আতঙ্কের মধ্যে রয়েছে দুই উপজেলার কয়েক লাখ মানুষ। শুস্ক মৌসুমে বাধ নির্মাণ করা না গেলে আগামী বর্ষায় নড়িয়া উপজেলা সদর বিলিন হওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। তাই দ্রুততম সময়ের মধ্যে বেরীবাধ নির্মানের দাবী জানিয়েছে স্থানীয়রা।

Total View: 1213

    আপনার মন্তব্য





সারাদেশ

কক্সবাজার

কিশোরগঞ্জ

কুড়িগ্রাম

কুমিল্লা

কুষ্টিয়া

খাগড়াছড়ি

খুলনা

গাইবান্ধা

গাজীপুর

গোপালগঞ্জ

চট্টগ্রাম

চাঁদপুর

চাঁপাইনবাবগঞ্জ

চুয়াডাঙা

জয়পুরহাট

জামালপুর

ঝালকাঠী

ঝিনাইদহ

টাঙ্গাইল

ঠাকুরগাঁও

ঢাকা

দিনাজপুর

নওগাঁ

নড়াইল

নরসিংদী

নাটোর

নারায়ণগঞ্জ

নীলফামারী

নেত্রকোনা

নোয়াখালী

পঞ্চগড়

পটুয়াখালি

পাবনা

পিরোজপুর

ফরিদপুর

ফেনী

বগুড়া

বরগুনা

বরিশাল

বাগেরহাট

বান্দরবান

ব্রাহ্মণবাড়িয়া

ভোলা

ময়মনসিংহ

মাগুরা

মাদারীপুর

মানিকগঞ্জ

মুন্সিগঞ্জ

মেহেরপুর

মৌলভীবাজার

যশোর

রংপুর

রাঙামাটি

রাজবাড়ী

রাজশাহী

লক্ষ্মীপুর

লালমনিরহাট

শরীয়তপুর

শেরপুর

সাতক্ষীরা

সিরাজগঞ্জ

সিলেট

সুনামগঞ্জ

হবিগঞ্জ

Flag Counter