বৃহস্পতিবার,  ১লা অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ,  ১৬ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ,  দুপুর ১:৩৮

প্রসঙ্গঃ জামায়াত শিবির!

অক্টোবর ৮, ২০১৯ , ১৮:১৩

মহিউদ্দিন তুষার
এক সময় জমিদাররা তাদের প্রজাদের উপর অনেক জুলুম/অত্যাচার করতো আর প্রজাদের কু…বাচ্চা, শু…বাচ্চা বলে গালাগাল করতো। দেখা যেত ঐ সময় এক জেলাতে একজন জমিদারি করতো। এখন আর সেই জমিদাররা নেই। কিন্তু কালের পরিক্রমায় এখন দেখা যাচ্ছে প্রতিটি থানায় এমনকি ওয়ার্ডে একজন করে জমিদারদের বংশদর সৃস্টি হয়েছে।

এখন আর জমিজারদের বংশদররা আগের মত ঐসব বাজে ভাষা ব্যবহার করে গালাগাল করে না। দেশ উন্নত হয়েছে, মানুষ শিক্ষিত হয়েছে, মানুষের ভাষাগত, আচরণগত পরিবর্তন হয়েছে। কেউ কেউ আবার সমার্থক শব্দ ব্যবহার করেও কথা বলছে। তাই এখন আর তারা কু…বাচ্চা, শু…বাচ্চা বলে গালাগাল দেয় না। তারা এখন তুই সালা জামায়াত-শিবির এটা বলেই বেশি মজা বা আনন্দ পায়।

আমার বয়স যখন ১০ কিংবা ১২ বছর ঐ সময় স্লোগান দিতাম হাবিব ভাই এর ছাতি। মার্কাটা কি ছাতি। হাবিব ভাই যাকে বললাম তিনি হলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা হাবিবুর রহমান সিকদার। বর্তমানে তিনি নিজ ইউনিয়ন চরভাগা ইউনিয়নের সফল চেয়ারম্যান। তিনি দেশের জন্য যুদ্ধ করেছেন। তার আপাদমস্তক আওয়ামী লীগ। ছোট বেলা থেকেই দেখে আসছি বাবা-মা, চাচা-চাচী, খালা-খালু, নানী-দাদীকে এই ছাতা মার্কা আর শেখের নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে আসছে।পরিবারের মননেই বড় হয়েছি।স্লোগান দিয়েছি রাজ্জাক ভাই এর নৌকা, শওকত ভাই এর নৌকা মার্কার। সর্বশেষ বর্তমান পানিসম্পদ উপমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক একেএম এনামুল হক শামীম ভাই এর নৌকা মার্কার জন্য ভোট চাইতে ভোটারদের ধারে ধারে পযর্ন্ত গিয়েছি। যদিও আমার কোন দলীয় পোষ্ট নেই, মঞ্চে নেতাদের সাথে ছবি নেই তবে এটাই সত্য আমি আওয়ামী লীগ পরিবারের লোক। তার পরেও আমাকে শুনতে হয় তুই সালা জামায়াত-শিবির লালন করছ।

এখন এটা সবার কাছে স্পষ্ট যে তুই সালা জামায়াত-শিশির এটা একটা বকা। জমিদারের বংশদররা আগের মত কু…বাচ্চা, শু…বাচ্চা বলে বকা দেয় না তাদের মতে স্মাট ও শিক্ষিত ভাষায় জামায়াত-শিবির বলে বকা দেয়। তাই এখন আর মন খারাপ হয় না। এখন নব্য আওয়ামী লীগাররাও পুরাতন আওয়ামী লীগের নেতাদের জামায়াত-শিবির বলে বকা দেয়।

বুয়েটের ছাত্র আবরার ফাহাদকে শিবিরের ট্যাগ লাগিয়ে সহপাঠীরা হলে ডেকে নিয়ে যেভাবে হত্যা করলো তা লেখার ভাষায় প্রকাশ করার মত নয়। জানি না সে সত্যি কারের জামায়াত-শিবির লালন করতো কিনা। না আমার মত আওয়ামী লীগের কর্মী হয়েও এমন অপবাদে জীবন দিতে হলো। কথা হলো- আবরার ফাহাদ শিবির দলকে লালন করলেই কেন তাকে এভাবে মারতে হবে? দেখা যায় কোন না কোন আওয়ামী লীগের মন্ত্রীর আত্মীয় জামায়াত-শিবিরের বড় নেতা। কোন না কোন এমপির আত্মীয় বিএনপির বড় নেতা। দেখা যায় দিনের বেলা টকশোতে জামায়াত-শিবির, আওয়ামী লীগ-বিএনপি, জাতীয় পার্টি দলের নেতা হয়ে এক দল অন্য দলকে ছোট করে কথা বলছে, গালাগাল দিচ্ছে আর রাতে এক সাথে বসে হাঁসি ঠাট্টা করে রাতের খাবার খাচ্ছে।

সদ্য, প্রধানমন্ত্রীর সাথে ভারত সফর করে আসলো এক সময়ের জামায়াত-শিবিরের সক্রিয় নেতা। ছাত্র দলের ছেলেরা রাস্তায় পড়ে মার খাচ্ছে এবং জেলে পচে মরছে অথচ লোকমান হোসেনেরা খালেদা জিয়ার মাথার উপরে রাখা ছাতা জিল্লুর রহমান পুত্রের মাথার উপরে ধরে দেশের ক্রিড়া অঙ্গনের নেতৃত্ব দিচ্ছে, করছে জুয়ার ব্যবসা। তবে ছোটদের উপর কেন এত অত্যাচার??
কেন আবরার ফাহাদকে শিবিরের ট্যাগ লাগিয়ে মারা হলো?? এই দল যারা লালন করে, যারা শিবিরের বড় নেতা/কর্তা তাদেরকে কেন বাচিয়ে রাখা হয়েছে? তারা কিভাবে টকশো, মিটিং, মিছিল করে, অন্য দলে যোগ দিয়ে জাতীয় নির্বাচন করে। তাহলে কি ফাহাদের মৃত্যুর জন্য অন্য কোন কারন ছিলো? আবরার ফাহাদ দেশের স্বার্থে তার ফেসবুকে প্রতিবাদ করাই কি ছিলো তার কাল?

সোনার ছেলেরা যদি এতই প্রতিবাদ করতে জানেন, দেশকে ভালোবাসেন, দেশের ভালো চান, সাধারণ মানুষের ভালো চান তাহলে কেন তারা এসব অন্যায়ের প্রতিবাদ করছেন না। দেশের প্রতিটি সরকারি সেক্টরে চলতে হরিলুট। ব্যাংকের কথা নাই বা বললাম। শেয়ার বাজারের কথা সবার জানা। চলছে বালিশ কাণ্ড, বই কাণ্ড, ভিসি কাণ্ড, চাদাবাজি, টেন্ডারবাজি, জুয়া ইত্যাদি, ইত্যাদি।

আবরার ফাহাদ হয়তো আর আমাদের মাঝে ফিরে আসবে না। তবে এক দিন মৃত্যুর আসল কারন ঠিকই বের হয়ে আসবে। আবরার ফাহাদরা প্রকৃত দেশ প্রেমিক, তারা মরে না শহীদ হয়। দেশের জন্য শহীদ হয়। যারা দেশকে ভালোবাসে শত প্রতিকূলতার মাঝেও তারা আবরার ফাহাদের মতই প্রতিবাদ করবে।

Total View: 255

    আপনার মন্তব্য





সারাদেশ

কক্সবাজার

কিশোরগঞ্জ

কুড়িগ্রাম

কুমিল্লা

কুষ্টিয়া

খাগড়াছড়ি

খুলনা

গাইবান্ধা

গাজীপুর

গোপালগঞ্জ

চট্টগ্রাম

চাঁদপুর

চাঁপাইনবাবগঞ্জ

চুয়াডাঙা

জয়পুরহাট

জামালপুর

ঝালকাঠী

ঝিনাইদহ

টাঙ্গাইল

ঠাকুরগাঁও

ঢাকা

দিনাজপুর

নওগাঁ

নড়াইল

নরসিংদী

নাটোর

নারায়ণগঞ্জ

নীলফামারী

নেত্রকোনা

নোয়াখালী

পঞ্চগড়

পটুয়াখালি

পাবনা

পিরোজপুর

ফরিদপুর

ফেনী

বগুড়া

বরগুনা

বরিশাল

বাগেরহাট

বান্দরবান

ব্রাহ্মণবাড়িয়া

ভোলা

ময়মনসিংহ

মাগুরা

মাদারীপুর

মানিকগঞ্জ

মুন্সিগঞ্জ

মেহেরপুর

মৌলভীবাজার

যশোর

রংপুর

রাঙামাটি

রাজবাড়ী

রাজশাহী

লক্ষ্মীপুর

লালমনিরহাট

শরীয়তপুর

শেরপুর

সাতক্ষীরা

সিরাজগঞ্জ

সিলেট

সুনামগঞ্জ

হবিগঞ্জ

Flag Counter