শুক্রবার,  ২৩শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ,  ১০ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ,  দুপুর ২:১৩

“প্রেম করে বিয়ে করলেও ভালোবাসা ছিল না আকলিমার সংসারে”

ডিসেম্বর ১০, ২০১৯ , ২১:১৪

জান্নাতুল শাহানাজ রতনা
প্রেমিকের হাত ধরে পালিয়ে বিয়ে করেছিলেন আকলিমা। ভেবেছিলেন স্বামীর সংসারে সুখেই থাকবেন। কিন্তু আকলিমার জীবনে সেই সুখ আসেনি। বিয়ের পর থেকেই আকলিমার জীবনে নেমে আসে ঘোর অমানিশার অন্ধকার।
পনের বছরের দাম্পত্য জীবনে তাদের সংসারে এসেছে দুই ছেলে এবং এক মেয়ে। কিন্তু তাতেও তাদের জীবনে শান্তি ফিরে আসেনি। শেষ পর্যন্ত জীবন দিতে হলো আকলিমাকে।
৯ ডিসেম্বর সোমবার দুপুর ১২ টার দিকে শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ উপজেলার সখিপুর থানার কাঁচিকাটা ইউনিয়নের জবর দখল গ্রামে অবস্থিত নিজ বসতঘর থেকে আকলিমার মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।
আকলিমা ওই গ্রামের গিয়াসউদ্দিন সরদারের ছেলে আল আমিন সরদারের স্ত্রী। আকলিমার পরিবারের অভিযোগ, আকলিমাকে হত্যা করে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে ঘরের আড়ার সাথে ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য স্বামী আল আমিনকে আটক করেছে পুলিশ।
আকলিমার বড় ভাই সাইফুল ইসলাম অভিযোগ করে সংলাপ ৭১.কমকে বলেন, “পাশাপাশি বাড়ি হওয়ায় ১৫ বছর আগে আল আমিনের সাথে প্রেমের সম্পর্ক হয় আকলিমার। সেই প্রেমের সর্ম্পকের জোড়ে আকলিমাকে নিয়ে ঢাকায় পালিয়ে যায় আল আমিন। সেখানে তারা বিয়ে করেন। কিছুদিন পর তারা আবার বাড়ি ফিরে আসেন। বাড়ি ফিরে আসার পর থেকে আল আমিনের পরিবার আকলিমার উপর অত্যাচার নির্যাতন শুরু করে। পরে স্থানীয় মুরব্বীরা সালিশ দরবার করে আপোষ মিমাংসা করে দেন। মুব্বীদের সিদ্ধান্ত মতে আকলিমাকে তিন ভরি স্বর্ণালংকার ও আল আমিনকে যৌতুক হিসেবে ৭০ হাজার টাকা দেয়া হয়। এর কিছুদিন পর তারা আবারও আকলিমাকে অত্যাচার নির্যাতন করতে থাকে। পালিয়ে বিয়ে করার কারণে আকলিমা মুখ বুজে সব নির্যাতন সহ্য করেছে। কিন্তু প্রেম করে বিয়ে করলেও ভালোবাসা ছিল না আকলিমার সংসারে”।
তিনি আরও বলেন, “পনের বছরের দাম্পত্য জীবনে আল আমিনের পরিবারের অনেক দাবি মেটানো হয়েছে। এ পর্যন্ত আড়াই লাখ টাকা, তিন ভরি স্বর্ণালংকার ও চারটি গরু দেয়া হয়েছে। কিন্তু তাতেও আল আমিনের পরিবার সন্তুষ্ট হতে পারেনি। শেষ পর্যন্ত তারা আমার বোনটাকে মেরে ফেলেছে। আমরা এ হত্যার সুষ্ঠ তদন্ত ও বিচার দাবি করছি”।
সখিপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এনামুল হক সংলাপ ৭১.কমকে বলেন, “ঘরের আড়ার সাথে ঝুলন্ত অবস্থায় গৃহবধু আকলিমার মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। ময়না তদন্তের জন্য মরদেহ শরীয়তপুর সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। পদ্মার দূর্গম চরাঞ্চল হওয়ায় সেখান থেকে মরদের আনতে সময় লাগছে। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য স্বামী আল আমিনকে আটক করা হয়েছে”।

Total View: 297

    আপনার মন্তব্য





সারাদেশ

কক্সবাজার

কিশোরগঞ্জ

কুড়িগ্রাম

কুমিল্লা

কুষ্টিয়া

খাগড়াছড়ি

খুলনা

গাইবান্ধা

গাজীপুর

গোপালগঞ্জ

চট্টগ্রাম

চাঁদপুর

চাঁপাইনবাবগঞ্জ

চুয়াডাঙা

জয়পুরহাট

জামালপুর

ঝালকাঠী

ঝিনাইদহ

টাঙ্গাইল

ঠাকুরগাঁও

ঢাকা

দিনাজপুর

নওগাঁ

নড়াইল

নরসিংদী

নাটোর

নারায়ণগঞ্জ

নীলফামারী

নেত্রকোনা

নোয়াখালী

পঞ্চগড়

পটুয়াখালি

পাবনা

পিরোজপুর

ফরিদপুর

ফেনী

বগুড়া

বরগুনা

বরিশাল

বাগেরহাট

বান্দরবান

ব্রাহ্মণবাড়িয়া

ভোলা

ময়মনসিংহ

মাগুরা

মাদারীপুর

মানিকগঞ্জ

মুন্সিগঞ্জ

মেহেরপুর

মৌলভীবাজার

যশোর

রংপুর

রাঙামাটি

রাজবাড়ী

রাজশাহী

লক্ষ্মীপুর

লালমনিরহাট

শরীয়তপুর

শেরপুর

সাতক্ষীরা

সিরাজগঞ্জ

সিলেট

সুনামগঞ্জ

হবিগঞ্জ

Flag Counter