শুক্রবার,  ৩রা জুলাই, ২০২০ ইং,  ১৯শে আষাঢ়, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ,  ভোর ৫:০৫

ফসলী জমিতে ভেকুর রাজত্ব, ধ্বংস হচ্ছে ফসলি জমি

ফেব্রুয়ারি ৫, ২০২০ , ২৩:১৫

শাকিল আহম্মেদ
প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ উপেক্ষা করে শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ, ডামুড্যা, গোসাইরহাট, সখিপুর সহ বিভিন্ন উপজেলায় শত শত একর ফসলি জমি কেঁটে পুকুরে রুপান্তরিত করা হচ্ছে। প্রশাসনের শত চেষ্টার পরও একটি প্রভাবশালী চক্রের ইশারায় অব্যহত রয়েছে প্রতিনিয়তই চলছে এ ধ্বংসযজ্ঞ। ফলে এ অঞ্চলের ফসলি জমির পরিমাণ অভাবনীয় হারে কমতে শুরু করেছে। হুমকিতে পড়ছে পুরো জেলার খাদ্য নিরাপত্তা। বেকার হয়ে পড়ছে শত শত বর্গা চাষী ও মাঠ শ্রমিকরা।

ভেদরগঞ্জ উপজেলা কৃষি অফিসের তথ্য মতে, উপজেলার ছয়গাঁও, মহিষার, চরভাগা, রামভদ্রপুর ইউনিয়নে প্রতি বছর ২০৫৮ হেক্টর জমিতে প্রতি বছর ১৩,৫৮২ মেট্রিক টন বোর ধান উৎপন্ন করা হতে। এর মধ্যে ছয়গাঁও ইউনিয়নে উৎপাদনের পরিমান সবচেয়ে বেশী ছিল। চলতি মৌশুমের এ সময়টাতে ইউনিয়ন গুলোর হাজার হাজার কৃষক-শ্রমিক ব্যস্ত থাকতো বোর ধান রোপনের কাজে। কিন্তু বর্তমানে সেখানে দেখা যাচ্ছে উল্টো চিত্র। সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, এসব ইউনিয়নের আবাদি জমিগুলোতে প্রতিদিন এক ডজনেরও বেশী ভেকু মেশিন ব্যস্ত রয়েছে পুকুর খনন কাজে। সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত শত শত একর আবাদি জমি ধ্বংস করা হচ্ছে এসব ভেকু মেশিন দ্বারা। স্থানীয় একটি প্রভাবশালী চক্রের ইশারায় এসব ভেকু মেশিন গুলো নিয়মিত চলছে বলে অভিযোগ স্থানীয়দের। আবার অনেকের জমির চারপাশ দখল করে পুকুর খনন করায় তারা বাধ্য হয়েই জমি দিয়েছে বলে অভিযোগ করেন ভুক্তভোগী কৃষকরা। এরই মধ্যে ভেদরগঞ্জ উপজেলা প্রশাসন ১০টিরও বেশী অভিযান চালিয়ে ২ লক্ষ টাকা জরিমানা সহ ৩টি ভেকু জব্দ করলেও কিছুতে থামছে না এসব কৃষি জমি কর্তন। তাছাড়া কিছু কিছু কৃষক খন্ডকালীন মাছ চাষের নামে জেলা প্রশাসন থেকে অনুমতি নিয়ে পুরো জমিতেই মাছের ঘেরে করছে। এর ফলে অন্য ধান চাষীরা উৎসাহিত হয়ে পুকুর খননের অনুমতির জন্য প্রশাসনের দ্বারে দ্বারে ছুটছে।

স্থানীয় উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা ফিরোজ মিয়া ও শফিকুল ইসলাম বলেন, ধানের দাম কম , শ্রমিকের অপর্যাপ্ততা, বেশী মজুরী, সার ও বীজ এবং আনুসাঙ্গিক খরচের কথা চিন্তা করেই ক্ষেত মালিকরা তাদের জমিগুলো মাছের খামারে পরিনত করছে। এজন্য কৃষকদেরকে ধান চাষের পরামর্শ দিলেও তারা শুনছে না।

ছয়গাঁও ইউনিয়নের বর্গা চাষী মামুন মিয়া ও আজহারুল মিয়া বলেন, জমির মালিকরা অতিরিক্ত লাভের জন্য তাদের চাষের জমিগুলো মাছ চাষের জন্য লিজ দিয়ে দিচ্ছেন। এতে করে আমারা ও ক্ষেতের শ্রমিকরা বেকার হয়ে যাচ্ছি। পরিবার পরিজন সহ আমাদের ভবিষ্যৎ নিয়ে চিন্তিত আছি।

ক্ষেত মালিক সুফিয়ান মিয়া ও কাদির হোসেন বলেন, ধানের দাম কম হওয়াতে আমরা লাভবান হতে পারছিনা। তাছাড়া আমার জমির চারপাশে অন্যান্যরা পুকুর খনন করায় এখানে সেচ ব্যবস্থা নেই। তাই বাধ্য হয়েই ঘের করছি। অন্যান্যরা ঘের করা বন্ধ করে দিলে আমরাও বন্ধ করে দিবো।

ছয়গাঁ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মামুন মীর বলেন, আমার ইউনিয়নের কোন কৃষকের কাছ থেকে জোর করে জমি নিতে চাইলে ইউএনও মহোদয়ের নির্দেশে আমরা তাদেরকে প্রতিহত করি। মূল্যত ধানের দাম কম হওয়াতে কৃষকরা নিজেরাই মাছ চাষের জন্য আগ্রহী হচ্ছে। বিষয়টি আমি প্রশাসনকে অবগত করেছি।

এ বিষয়ে ভেদরগঞ্জ উপজেলা খাদ্য কর্মকর্তা জনাব মোঃ কফিল উদ্দিন বলেন, আমার মতে যে সব জমি চাষাবাদের উপযুক্ত নয় সে গুলো মাছ চাষের জন্য দেয়া হোক। কিন্তু চাষাবাদ যোগ্য জমিগুলোতে এভাবে মাছের ঘের করলে উপজেলার খাদ্য নিরাপত্তা হুমকির মধ্যে পড়বে।

তবে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মুহম্মদ সাখাওয়াত হোসেন বলেন, মূল্যত ধানের দাম কম থাকা ও শ্রমিকের মজুরী বেশী হওয়ার কারনে কৃষকরা মাছ চাষের দিকে আগ্রহী হচ্ছে। একমাত্র কৃষি জমি সংরক্ষনের বিষয়ে সুনির্দিষ্ট আইন চালু করেই কৃষকদের এ আগ্রহ থেকে ফিরিয়ে আনা সম্ভব। তাছাড়া আমাদের খাদ্য নিরাপত্তা হুমকির মধ্যে পড়তে পারে।

তবে ভেদরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জনাব তানভীর আল নাসীফ বলেন, কৃষি জমি রক্ষার বিষয়ে আমাদের উপজেলা প্রশাসন সর্বোচ্চ তৎপর রয়েছে। জরিমানা করা হয়েছে, ভেকু জব্দ করা হয়েছে। তবে কিছু কিছু স্থানে গভীর রাতে ভেকু দ্বারা জমি খননের কথা শুনেছি। সেখানেও আমরা কঠোরভাবে অভিযান পরিচালনা করবো।

Total View: 247

    আপনার মন্তব্য





সারাদেশ

কক্সবাজার

কিশোরগঞ্জ

কুড়িগ্রাম

কুমিল্লা

কুষ্টিয়া

খাগড়াছড়ি

খুলনা

গাইবান্ধা

গাজীপুর

গোপালগঞ্জ

চট্টগ্রাম

চাঁদপুর

চাঁপাইনবাবগঞ্জ

চুয়াডাঙা

জয়পুরহাট

জামালপুর

ঝালকাঠী

ঝিনাইদহ

টাঙ্গাইল

ঠাকুরগাঁও

ঢাকা

দিনাজপুর

নওগাঁ

নড়াইল

নরসিংদী

নাটোর

নারায়ণগঞ্জ

নীলফামারী

নেত্রকোনা

নোয়াখালী

পঞ্চগড়

পটুয়াখালি

পাবনা

পিরোজপুর

ফরিদপুর

ফেনী

বগুড়া

বরগুনা

বরিশাল

বাগেরহাট

বান্দরবান

ব্রাহ্মণবাড়িয়া

ভোলা

ময়মনসিংহ

মাগুরা

মাদারীপুর

মানিকগঞ্জ

মুন্সিগঞ্জ

মেহেরপুর

মৌলভীবাজার

যশোর

রংপুর

রাঙামাটি

রাজবাড়ী

রাজশাহী

লক্ষ্মীপুর

লালমনিরহাট

শরীয়তপুর

শেরপুর

সাতক্ষীরা

সিরাজগঞ্জ

সিলেট

সুনামগঞ্জ

হবিগঞ্জ

Flag Counter