শনিবার,  ২৪শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ,  ৮ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ,  বিকাল ৫:০৯

মাদকের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করায় প্যানেল মেয়রের উপর হামলা

এপ্রিল ১৩, ২০১৮ , ২২:৪২

স্টাফ রিপোর্টার
শরীয়তপুরে মাদক সেবন এবং বিক্রির প্রতিবাদ করায় মাদকসেবীদের হামলা শিকার হয়েছেন শরীয়তপুর পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর এবং প্যানেল মেয়র-২ মোহাম্মদ আলমগীর মৃধা।
শুক্রবার সকালে কাগদী দক্ষিন পাড়া গ্রামে নিজ এলাকায় এ হামলার শিকার হন তিনি। তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ ব্যাপারে থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।
পালং মডেল থানা ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সম্প্রতি শরীয়তপুরের পুলিশ প্রশাসন এবং প্যানেল মেয়র আলমগীর মৃধার নেতৃত্বে কাগদি বাজারে একটি মাদক বিরোধী সমাবেশ হয়। সেখানে স্থানীয় কিছু চিহ্নিত মাদক সেবী ও মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে কথা বলেন প্যানেল মেয়র আলমগীর। তিনি ওই সকল মাদকাসক্ত ব্যাক্তিদের মাদক সেবন ও মাদক ব্যবসা থেকে বিরত থাকতে আহ্বান জানান।
শুক্রবার ফজরের নামাজ শেষে আলমগীর প্রাতভ্রমন করেন। প্রাতভ্রমন শেষে সকাল ৭ টার দিকে কাগদী বাজারে এসে একটি চায়ের দোকানে চা পান করছিলেন। পূর্ব পরিকল্পনা মাফিক শরীয়তপুর পৌরসভার ৬ নং ওয়ার্ডের কাগদি এলাকার রমিজ উদ্দিন বেপারীর ছেলে মাদক ব্যবসায়ী শাহজালাল বেপারী, হারুণ মাদবরের ছেলে জালাল মাদবর এবং জলিল শেখের ছেলে সাদ্দামসহ আরো কয়েকজন মিলে আলগীরের উপর অতর্কিতে হামলা চালায়।
হামলাকারীরা আলমগীরের মাথা ও ঘাড়ের উপর এলোপাতারী ভাবে হাতুড়ি দিয়ে পেটাতে থাকে। মাথায় আঘাতপ্রাপ্ত হওয়ার কারণে সে মাটিতে লুটিয়ে পরে এবং অজ্ঞান হয়ে যায়। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে প্রথমে শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন। আলমগীর মৃধার মাথার আঘাত গুরুতর হওয়ায় শরীয়তপুরের চিকিৎসকরা তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন।
কয়েক মাস আগে মাদকের বিরুদ্ধে কথা বলায় এক মসজিদের ঈমানকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জখম করেছিল মাদকাসক্তরা। তার কোন বিচার না হওয়ায় আলমগীরের উপর এ হামলার সাহস পেয়েছে বলে জানান স্থানীয়রা। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত আলমগীরের স্ত্রী পারভীন আক্তার বাদী হয়ে শরীয়তপুর সদর পালং মডেল থানায় একটি মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে জানা গেছে।
এ ব্যাপারে শরীয়তপুর পৌরসভার মেয়র মোঃ রফিকুল ইসলাম কোতোয়াল বলেন, পৌরসভার প্যানেল মেয়র-২ এবং ৬ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর হোসেন মোহাম্মদ আলমগীর মৃধা সব সময়ই মাদক এবং জুয়ার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করে আসছেন। স্থানীয় মাদক ব্যবসায়ী ও মাদক সেবিদের সুপথে ফিরিয়ে আনতে তিনি অনেক উদ্যোগ গ্রহণ করেছেন। সম্প্রতি একটি মাদক বিরোধী সভায় আলমগীর চিহ্নিত মাদকাসক্ত ও মাদক বিরোধীদের বিষয়ে আলোচনা করায় তার উপর ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে হত্যার উদ্দেশ্যে এই হামলা করা হয়েছে বলে আমি মনে করি। আমি হামলাকারীদের দ্রুত গ্রেফতার পূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে প্রশানকে অনুরোধ করছি।
পালং মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ মনিরুজ্জামান বলেন, প্যানেল মেয়রের উপর হামলাকারীদের বিরুদ্ধে মামলার প্রস্তুতি চলছে। পুলিশ তামলাকারীদের আটকের চেষ্টা করছে।

Total View: 910

    আপনার মন্তব্য





সারাদেশ

কক্সবাজার

কিশোরগঞ্জ

কুড়িগ্রাম

কুমিল্লা

কুষ্টিয়া

খাগড়াছড়ি

খুলনা

গাইবান্ধা

গাজীপুর

গোপালগঞ্জ

চট্টগ্রাম

চাঁদপুর

চাঁপাইনবাবগঞ্জ

চুয়াডাঙা

জয়পুরহাট

জামালপুর

ঝালকাঠী

ঝিনাইদহ

টাঙ্গাইল

ঠাকুরগাঁও

ঢাকা

দিনাজপুর

নওগাঁ

নড়াইল

নরসিংদী

নাটোর

নারায়ণগঞ্জ

নীলফামারী

নেত্রকোনা

নোয়াখালী

পঞ্চগড়

পটুয়াখালি

পাবনা

পিরোজপুর

ফরিদপুর

ফেনী

বগুড়া

বরগুনা

বরিশাল

বাগেরহাট

বান্দরবান

ব্রাহ্মণবাড়িয়া

ভোলা

ময়মনসিংহ

মাগুরা

মাদারীপুর

মানিকগঞ্জ

মুন্সিগঞ্জ

মেহেরপুর

মৌলভীবাজার

যশোর

রংপুর

রাঙামাটি

রাজবাড়ী

রাজশাহী

লক্ষ্মীপুর

লালমনিরহাট

শরীয়তপুর

শেরপুর

সাতক্ষীরা

সিরাজগঞ্জ

সিলেট

সুনামগঞ্জ

হবিগঞ্জ

Flag Counter