শনিবার,  ২৪শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ,  ৮ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ,  বিকাল ৩:১০

যৌনক্ষুধা মেটতে না পেরে এফ.ডব্লিও.ভি’কে জুটা পেটা করলেন এফ.পি.আই

এপ্রিল ১০, ২০১৮ , ১৬:১১

আবদুল বারেক ভূইয়া
শরীয়তপুরের নড়িয়া উপজেলার বিঝারী ইউনিয়নের পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের এফ.পি.আই মোঃ নূরুজ্জামান সোহাগের বিরুদ্ধে তার সহকর্মী পরিবার কল্যাণ পরিদর্শীকা নাহিদা আক্তারকে অফিস চলাকালিন জুটা দিয়ে পেটানোর অভিযোগ উঠেছে। শুধু তাই নয়, এফ.পি.আই মোঃ নূরুজ্জামান সোহাগ তাকে যৌন শুড়শুড়ি দেন বলেও অভিযোগ রয়েছে।
এ ব্যাপারে ১০এপ্রিল মঙ্গলবার পরিবার কল্যাণ পরিদর্শীকা নাহিদা আক্তার নড়িয়া উপজেলার এম.সি.এইচ.এফ.পি’র মেডিকেল আফিসার ডাঃ নাহিদ আল মাসুমের কাছে লিখিত অভিযোগ করেছেন।
ভূক্তভোগীর অভিযোগ এবং প্রত্যক্ষদর্শী নজরুল ইসলাম জানায়, ৯এপ্রিল দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে সে তার স্ত্রীর ব্যাপারে পরিবার কল্যাণ পরিদর্শীকা নাহিদা আক্তারের সাথে আলাপ করতে এসেছিলেন। তখন এফ.পি.আই মোঃ নূরুজ্জামান সোহাগ স্বাস্থ্য কেন্দ্রে লাগানো একটি ফ্যানের রেগুলেটর নিয়ে পরিবার কল্যাণ পরিদর্শীকা নাহিদা আক্তারের সাথে কথা কাটাকাটি করছিলেন। কথা কটাকাটির এক পর্যায়ে এফ.পি.আই মোঃ নূরুজ্জামান সোহাগ তার পায়ের জুতা দিয়ে পরিবার কল্যাণ পরিদর্শীকা নাহিদা আক্তারকে পিটাতে শুরু করেন। তখন আমরা স্থানীয় কয়েক জন মিলে তাদেরকে ছাড়িয়ে দেই।
ভূক্তভোগী পরিবার কল্যাণ পরিদর্শীকা নাহিদা আক্তারের সাথে আলাপ কালে তিনি বলেন, আমি রোগী দেখায় ব্যাস্ত ছিলাম। তখন এফ.পি.আই নূরুজ্জামান সোহাগ অফিসে এসে ফ্যানের রেগুলেটর খারাপ দেখে আমার সাথে কথা কাটাকাটি শুরু করেন। কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে সে তার পায়ের জুতা দিয়ে পেটাতে শুরু করে। তখন স্থানীয় কয়েক জন লোক এসে আমাকে উদ্ধার করেন। সে মাঝে মধ্যেই আমার সাথে খারাপ আচোরণ করে। আমি একজন মহিলা। বয়সে সে আমার অনেক ছোট। আমাকে তার সম্মান দিয়ে কথা বলা উচিৎ। কিন্তু তিনি সেটা করেন না। তিনি মাঝে মাঝে আমাকে যৌন ইঙ্গিত দেয়ার চেষ্টা করেন। তিনি ফেসবুক চালান। ফেসবুক থেকে পর্ণছবি ডাউনলোড করে আমাকে দেখানোর চেষ্টা করেন। আমি তাকে পাত্তা না দেয়ায় আজ সে আমাকে এতোগুলো লোকের মাঝে অপমান করলো। আমি মহিলা বলে কি আমাদের কোন আত্মসম্মান নেই ? আমরা কি শুধু ভোগের পাত্র ? আমাদের কি বাঁচার অধিকার নেই ? আমি চরিত্রহীন সোহাগের বিচার চাই।
এ ব্যাপারে এফ.পি.আই মোঃ নূরুজ্জামান সোহাগের সাথে যোগাযোগ করতে গেলে তাকে অফিসে পাওয়া যায়নি। পরে তার মুঠোফোনে কল দিলে মুঠোফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।
এ ব্যাপারে নড়িয়া উপজেলার এম.সি.এইচ.এফ.পি’র মেডিকেল আফিসার ডাঃ নাহিদ আল মাসুমের সাথে মুঠো ফোনে আলাপ কালে তিনি বলেন, আমি ব্যাপারটি শুনেছি। আজ তারা দু’জনেই আমার কছে এসেছিলেন। আমি তাদের কাছ থেকে লিখিত বক্তব্য রেখেছি। সেই লিখিত বক্তব্য আমি উপ-পরিচালকের কাছে পাঠাবো। তিনিই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন। তবে, এফ.পি.আই মোঃ নূরুজ্জামান সোহাগ যে কাজটি করেছেন, তা ঠিক করেননি। অফিস চলাকালিন একজন মহিলা কর্মচারীকে জুতা দিয়ে পেটাবেন, তা অমার্জনীয় অপরাধ। তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
এ ব্যাপারে শরীযতপুর পরিবার পরিকল্পনা কার্যালয়ের উপ-পরিচালক মোঃ মাজাহারুল হক চৌধুরীর সাথে মুঠোফোনে আলাপ কালে তিনি বলেন, আমি ব্যাপারটি শুনেছি। সেই মোতাবেক নড়িয়া উপজেলা কর্মকর্তাকে সঠিক ভাবে তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য নির্দেশ দিয়েছি। অপরাধী যেই হোক তাকে কোন ভাবেই ছাড় দেয়া হবে না।
নিউজটি সম্পাদনা করেছেন এম.এ ওয়াদুদ মিয়া।

Total View: 1127

    আপনার মন্তব্য





সারাদেশ

কক্সবাজার

কিশোরগঞ্জ

কুড়িগ্রাম

কুমিল্লা

কুষ্টিয়া

খাগড়াছড়ি

খুলনা

গাইবান্ধা

গাজীপুর

গোপালগঞ্জ

চট্টগ্রাম

চাঁদপুর

চাঁপাইনবাবগঞ্জ

চুয়াডাঙা

জয়পুরহাট

জামালপুর

ঝালকাঠী

ঝিনাইদহ

টাঙ্গাইল

ঠাকুরগাঁও

ঢাকা

দিনাজপুর

নওগাঁ

নড়াইল

নরসিংদী

নাটোর

নারায়ণগঞ্জ

নীলফামারী

নেত্রকোনা

নোয়াখালী

পঞ্চগড়

পটুয়াখালি

পাবনা

পিরোজপুর

ফরিদপুর

ফেনী

বগুড়া

বরগুনা

বরিশাল

বাগেরহাট

বান্দরবান

ব্রাহ্মণবাড়িয়া

ভোলা

ময়মনসিংহ

মাগুরা

মাদারীপুর

মানিকগঞ্জ

মুন্সিগঞ্জ

মেহেরপুর

মৌলভীবাজার

যশোর

রংপুর

রাঙামাটি

রাজবাড়ী

রাজশাহী

লক্ষ্মীপুর

লালমনিরহাট

শরীয়তপুর

শেরপুর

সাতক্ষীরা

সিরাজগঞ্জ

সিলেট

সুনামগঞ্জ

হবিগঞ্জ

Flag Counter