শুক্রবার,  ২৩শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ,  ১০ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ,  দুপুর ১:৪০

শরীয়তপুরের পদ্মার তীরবর্তী এলাকা ভাঙ্গনের পূর্বাভাস

এপ্রিল ৫, ২০১৯ , ১৮:২৩

শাকিল আহমেদ
শরীয়তপুরের পদ্মা নদীর তীরবর্তী এলাকা আবারও ভয়াবহ ভাঙ্গনের কবলে পড়ার পূর্বাভাস দিয়েছে সরকারের ট্রাস্টি গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর এনভায়রনমেন্টাল অ্যান্ড জিওগ্রাফিক ইনফরমেশন সার্ভিসেস (সিইজিআইএস)।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর স্পেকট্রা কনভেনশন সেন্টারে সিইজিআইএস দেশের নদী বিশেষজ্ঞ ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) কর্মকর্তাদের সামনে সিইজিআইএস এ পূর্বাভাস তুলে ধরেন।

পূর্বভাসে বলা হয়, আগামী বছরের মধ্যে দেশের ৪ হাজার ৫শ হেক্টর বা ৪৫ বর্গকিলোমিটার এলাকা নদীতে বিলীন হয়ে যেতে পারে। এতে প্রায় ৪৫ হাজার মানুষ ঘরবাড়ি হারাতে পারে। সবচেয়ে বেশি ভাঙ্গনের মুখে পড়তে পারে পদ্মাপারের মাদারীপুর ও শরীয়তপুর জেলার নদীতীরবর্তী এলাকা।

মূলত মে থেকে নদীভাঙ্গন শুরু হয়ে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত চলে। গত বছর শরীয়তপুরের নড়িয়ার প্রায় দুই বর্গকিলোমিটার এলাকা ভাঙ্গনের কবলে পড়ে। এতে সরকারী হাসপাতাল, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, সরকারি প্রতিষ্ঠান, বসতভিটাসহ অনেক অবকাঠামো নদীতে বিলীন হয়ে যায়। এই ঘটনা তখন সারা দেশে আলোচিত হয়েছিল। সিইজিআইএস নড়িয়ার ভাঙ্গনের পূর্বাভাস দিলেও পাউবো ওই এলাকা রক্ষায় কোনো পদক্ষেপ নেয়নি। অবশ্য এ বছর পাউবো নড়িয়ায় পদ্মাতীরে জিওব্যাগ ফেলা, উল্টো পাড়ে জেগে ওঠা চর ও নদী খননের কাজ করছে। এর ফলে ওই এলাকায় এবার ভাঙ্গন না হওয়ার সম্ভাবনা আছে বলে পাউবোর কর্মকর্তারা মনে করছেন।

ভূ-উপগ্রহের ছবি, ভাঙ্গনপ্রবণ এলাকার মাটির ধরণ পরীক্ষা ও মাঠপর্যায়ের গবেষণার ভিত্তিতে সিইজিআইএস নদীভাঙ্গনের পূর্বাভাস দেয়। ২০০৪ সাল থেকে সংস্থাটি এই পূর্বাভাস দিচ্ছে। এখন পর্যন্ত পূর্বাভাসের ৭০ থেকে ৮০ শতাংশ সঠিক হয়েছে। ভাঙ্গনপ্রবণ এলাকাগুলো চিহ্নিত করে তা রক্ষায় যাতে সরকার উদ্যোগ নেয়, সে লক্ষ্যেই পূর্বাভাসটি দেয়া হয়। এর আগে এক বছরের জন্য পূর্বাভাসটি দেয়া হতো। এবারই প্রথম দুই বছরের জন্য পূর্বাভাসটি দেয়া হলো। সিইজিআইএসের উপ-নির্বাহী পরিচালক মমিনুল হক সরকারের নেতৃত্বে পূর্বাভাস পদ্ধতিটি উদ্ভাবন করা হয়েছে। বর্তমানে ভারত, নেপালসহ বিশ্বের বেশ কয়েকটি দেশে পদ্ধতিটি অনুসরণ করে নদীভাঙ্গনের পূর্বাভাস দেয়া হচ্ছে।

এবারের পূর্বাভাসটি সম্পর্কে মমিনুল হক সরকার বলেন, ‘দেশে ধারাবাহিকভাবে নদীভাঙ্গন কমছে। এর দুটি কারণ রয়েছে, প্রথমত, প্রাকৃতিক ভাবে কোনো একটি এলাকার মাটির গঠন নতুন হলে তা ভাঙ্গনের আশঙ্কার মধ্যে বেশি থাকে। মাটি শক্ত ও পরিণত হলে তা কম ভাঙ্গে। দ্বিতীয়ত, ভাঙ্গনরোধে অবকাঠামো তৈরি করলেও ভাঙ্গন কমে। এই দুটি কারণে আমাদের এখানে নদীভাঙ্গন কমে আসছে। ভাঙ্গন এলাকার স্থানীয়দের ক্ষতি কমাতে উদ্যোগ নিতে হবে।’

মূলত পদ্মা, যমুনা ও গঙ্গা নদীর অববাহিকায় ভাঙ্গনের পূর্বাভাস দিয়েছে সিইজিআইএস। দেশের অন্যান্য শাখা ও ছোট নদীর ভাঙ্গনের পূর্বাভাস এতে নেই। তবে সংস্থাটি আগামী বছর থেকে ওই সব নদীর ভাঙ্গনের পূর্বাভাসও দেবে বলে জানিয়েছেন সংস্থাটির নির্বাহী পরিচালক মোহাম্মদ ওয়াজি উল্লাহ।

সিইজিআইএসের সমীক্ষা অনুযায়ী, ১৯৭৩ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত ১ হাজার ৭শ বর্গকিলোমিটারের বেশি এলাকা নদীতে বিলীন হয়েছে। এতে প্রায় ১৭ লাখ ১৫ হাজার মানুষ বাস্তুচ্যুত হয়েছে। একই সময়ে পদ্মা, যমুনা ও গঙ্গা নদীর অববাহিকায় ৫শ ৮১ বর্গকিলোমিটার নতুন ভূমি জেগে উঠেছে।

চলতি বছরের জন্য দেয়া পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, ২৮ দশমিক ৬ বর্গকিলোমিটার এলাকা নদীভাঙ্গনের কবলে পড়তে পারে। এসব এলাকার মধ্যে রয়েছে মাদারীপুর (৫ দশমিক ৮৮ বর্গকিলোমিটার), টাঙ্গাইল (৩ দশমিক ৭৫ বর্গকিলোমিটার), শরীয়তপুর (৩ দশমিক ৫২ বর্গকিলোমিটার), রাজবাড়ী (৩ দশমিক ২৬ বর্গকিলোমিটার), কুড়িগ্রাম (২ দশমিক ৫৫ বর্গকিলোমিটার)। আর বাস্তুচ্যুত হতে পারে প্রায় ২৮ হাজার ৬শ মানুষ।

নদীভাঙ্গনের পূর্বাভাস উপস্থাপন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের ইমেরিটাস অধ্যাপক আইনুন নিশাত। তিনি বলেন, ওই ভাঙ্গনের পূর্বাভাসের একটি ইতিবাচক দিক হচ্ছে, বাংলাদেশের বিজ্ঞানীদের উদ্ভাবিত এই পদ্ধতি বাস্তবের সঙ্গে মিলে যাচ্ছে। তবে কোন এলাকার ভাঙ্গনরোধে সরকার কত অর্থ ব্যয় করবে, এটা নীতিগত সিদ্ধান্তের ব্যাপার। কেননা, চাঁদপুর ও সিরাজগঞ্জের ভাঙ্গনরোধে এ পর্যন্ত যত টাকা ব্যয় হয়েছে, তা দিয়ে ওই দুটি শহর কয়েকবার তৈরি করা যেত। তবে ভাঙ্গনের কারণে সাধারণত গরিব মানুষের ক্ষতি বেশি হয়। তাদের পুনর্বাসন ও ক্ষতিপূরণের ব্যবস্থা করতে হবে।

Total View: 501

    আপনার মন্তব্য





সারাদেশ

কক্সবাজার

কিশোরগঞ্জ

কুড়িগ্রাম

কুমিল্লা

কুষ্টিয়া

খাগড়াছড়ি

খুলনা

গাইবান্ধা

গাজীপুর

গোপালগঞ্জ

চট্টগ্রাম

চাঁদপুর

চাঁপাইনবাবগঞ্জ

চুয়াডাঙা

জয়পুরহাট

জামালপুর

ঝালকাঠী

ঝিনাইদহ

টাঙ্গাইল

ঠাকুরগাঁও

ঢাকা

দিনাজপুর

নওগাঁ

নড়াইল

নরসিংদী

নাটোর

নারায়ণগঞ্জ

নীলফামারী

নেত্রকোনা

নোয়াখালী

পঞ্চগড়

পটুয়াখালি

পাবনা

পিরোজপুর

ফরিদপুর

ফেনী

বগুড়া

বরগুনা

বরিশাল

বাগেরহাট

বান্দরবান

ব্রাহ্মণবাড়িয়া

ভোলা

ময়মনসিংহ

মাগুরা

মাদারীপুর

মানিকগঞ্জ

মুন্সিগঞ্জ

মেহেরপুর

মৌলভীবাজার

যশোর

রংপুর

রাঙামাটি

রাজবাড়ী

রাজশাহী

লক্ষ্মীপুর

লালমনিরহাট

শরীয়তপুর

শেরপুর

সাতক্ষীরা

সিরাজগঞ্জ

সিলেট

সুনামগঞ্জ

হবিগঞ্জ

Flag Counter