শুক্রবার,  ২৩শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ,  ১০ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ,  দুপুর ২:৪০

শরীয়তপুরে ধর্ম বোনের গর্ভে জন্ম নিলো ধর্ম ভাইয়ের সন্তান

ফেব্রুয়ারি ২৪, ২০১৯ , ২২:৫২

আবদুল বারেক ভূইয়া,
শরীয়তপুরের সখিপুর থানার চর সেনসাস ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডে আজহারুল বালা কান্দি গ্রামে শাহ জালাল চৌকিদার (৩৫) নামে এক ধর্ম ভাইয়ের কাছে স্ত্রীর মর্যাদা এবং সন্তানের পিতৃত্বের দাবী নিয়ে প্রতিনিয়ত ধর্ণা দিচ্ছেন সেলিনা বেগম (২৭) নামে এক ধর্ম বোন। এখন তিনি ঘোষনা দিয়েছেন, তাকে যদি শাহ জালাল চৌকিদার স্ত্রী হিসেবে স্বীকার না করেন তাহলে তিনি আত্মহত্যা করবেন এবং এই আত্মহত্যার জন্য দায়ী থাকবেন শাহ জালাল চৌকিদার। এ ঘোষনার প্রেক্ষিতে স্থানীয় সালিশগণ নড়েচড়ে বসেছেন। ব্যাপারটি দ্রুত মিমাংশা করবেন বলে জানিয়েছেন আজহারুল বালা কান্দি গ্রামের ১৬ সমাজের প্রধান মাকসুদ বালা। এদিকে ব্যাপারটি টক অফ দি টাউনে পরিণত হয়েছে।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, দীর্ঘ ৯ বছর পূর্বে ভেদরগঞ্জ উপজেলার সখিপুর থানার চর সেনসাস ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডে আজহারুল বালা কান্দি গ্রামের কালু মৃধার মেয়ের সাথে একই গ্রামের রূবেল হোসেনের বিয়ে হয়। তাদের ঘরে ৮ কছরের একটি কণ্যা সন্তান রয়েছে। সেলিনার স্বামী রূবেল হোসেন ঢাকায় সোয়েটার কারখানায় চাকুরী করেন। পাঁচ-ছয় মাস পর বাড়ি আসেন।
৫ বছর পূর্বে শাহ জালাল চৌকিদার (৩৫) নামে এক প্রতিবেশী সেলিনা বেগমের বাবাকে ধর্মের বাবা, মাকে ধর্মের মা, এবং সেলিনা বেগমকে ধর্মের বোন ডাকেন। সেলিনাকে ধর্মের বোন ডাকার সুবাদে শাহ জালাল চৌকিদার প্রতিনিয়ত সেলিনা বেগমের বাড়িতে আসা যাওয়া করতেন। এই আসা যাওয়ার মাঝেই শাহ জালাল চৌকিদারের সাথে সেলিনা বেগমের অবৈধ প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে।

শাহ জালাল তাকে বিয়ে করার আশ্বাস দিলে দুই বছর পূর্বে তার একটি কণ্যা সন্তানের জন্ম নেয়। যার বর্তমান বয়স প্রায় এক বছর। শাহ জালালের নির্দেশে সেলিনা বেগম তার পূর্বের স্বামী রূবেল হোসেনকে ডিভোর্স দেয়। কিন্তু এখন শাহ জালাল তাকে বিয়ে করবে না বলে অস্বীকৃতি জানায়। যার পরিপ্রেক্ষিতে সেলিনা বেগম তার সন্তানসহ আত্মহত্যা করার হুমকি দেয়।

এ ব্যাপারে সেলিনা বেগমের সাথে আলাপ কালে তিনি বলেন, ৯ বছর পূর্বে আমার বিয়ে হয়েছে এবং ৮ বছর বয়সের ১টি মেয়ে রয়েছে। আমার স্বামী ঢাকায় সোয়েটার কারখানায় চাকুরী করেন। আমি আমার বাবার বাড়ির পাশে বাবার দেয়া জমিতে ঘর তুলে বসবাস করি। পাঁচ-ছয় মাস পর আমার স্বামী বাড়ি আসেন। শাহ জালাল আমার আব্বাকে ধর্মের বাপ ডেকেছে। সেই সুবাদে শাহ জালাল আমার ধর্মের ভাই। সেই ধর্মের ভাই মাঝে মধ্যে আমার বাড়িতে এসে আমার সাথে ঠাট্টা-মাসকারা করতেন। একদিন আমার স্বামী কাছে না থাকায় সে আমাকে কু-প্রস্তাব দেয়। আমি প্রথমে অসম্মতি জ্ঞাপন করি। স্বামী কাছে না থাকায় এক পর্যায়ে আমি তার প্রতি দূর্বল হয়ে পড়ি। তারপর থেকে প্রায় চার বছর যাবৎ শাহ জালালের সাথে গড়ে ওঠে আমার অবৈধ প্রেমের সম্পর্ক। প্রায় দুই বছর পূর্বে আমি কনসেভ করি। এ বিষয়টি শাহ জালালকে জানালে শাহ জালাল আমাকে বলে, “চিন্তার কোন কারণ নেই, আমি তোমাকে বিয়ে করবো”। তার পরে একটি কন্যা সন্তান জন্ম গ্রহণ করে। যার বর্তমান বয়স প্রায় এক বছর। এ বিষয়টি আমার স্বামী জানতে পারলে সে বাড়ি আশা বন্ধ করে দেয় এবং আমার ভরণ পোষনের টাকা দেয়াও বন্ধ করে দেয়।
বিষয়টি শাহ জালালকে জানালে, শাহ জালাল আমার স্বামীকে ডিভোর্স দিতে বলেন। আমি শাহ জালালের কথার উপর ভিত্তি করে আমার পূর্বের স্বামীকে ডিভোর্স দেই। এখন শাহ জালাল আমাকে বিয়ে করতে রাজি হচ্ছে না। আমি আমার সন্তানের পিতার পরিচয় চাই এবং শাহ জালালের স্ত্রী হিসেবে অধিকার চাই। শাহ জালাল যদি আমার সন্তানের পিতার পরিচয় না দেয় তাহলে আমি এবং আমার সন্তানসহ আত্মহত্যা করবো।
এ ব্যাপারে স্থানীয় মোহন ঢালী বলেন, সেলিনা এবং শাহ জালালের ঘটনা এলাকার কম বেশী সবাই জানে। শাহ জালাল কাজটি ঠিক করেনি। মেয়েটাকে বিয়ে করার আস্বাস দিয়েছে বলেই তো আগের স্বামীকে সে ডিভোর্স দিয়েছে। মাকসুদ বালা নামে আমাদের একজন মুরব্বি আছেন, তিনি এসে এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নিবেন।
এ ব্যাপারে শাহ জালালের সাথে আলাপ করতে চাইলে তাকে এলাকায় পাওয়া যায়নি। তার মোবাইলে কল দিলে মোবাইলটি বন্ধ পাওয়া যায়।
এ ব্যাপারে চর সেনসাস ইউনিয়নের আজহারুল বালা কান্দি গ্রামের ১৬ সমাজের প্রধান মাকসুদ বালা বলেন, আমি ব্যাক্তিগত কাজে ঢাকায় আছি। আমি ব্যাপারটি শুনেছি। আমি আগামী কাল সোমবার দেশে যাবো। দেশে গিয়ে সবার সাথে আলাপ করে ব্যবস্থা নেবো।
এ ব্যাপারে চর সেনসাস ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জিতু বেপারীর সাথে আলাপ কালে তিনি বলেন, সেলিনা এবং শাহ জালালের ঘটনাটি আমি শুনেছি। আমার সাথে মাকসুদ বালার কথা হয়েছে। তিনি ঢাকা থেকে এসে তাদেরকে নিয়ে বসবেন এবং সামাজিক মিমাংসা করবেন।

Total View: 607

    আপনার মন্তব্য





সারাদেশ

কক্সবাজার

কিশোরগঞ্জ

কুড়িগ্রাম

কুমিল্লা

কুষ্টিয়া

খাগড়াছড়ি

খুলনা

গাইবান্ধা

গাজীপুর

গোপালগঞ্জ

চট্টগ্রাম

চাঁদপুর

চাঁপাইনবাবগঞ্জ

চুয়াডাঙা

জয়পুরহাট

জামালপুর

ঝালকাঠী

ঝিনাইদহ

টাঙ্গাইল

ঠাকুরগাঁও

ঢাকা

দিনাজপুর

নওগাঁ

নড়াইল

নরসিংদী

নাটোর

নারায়ণগঞ্জ

নীলফামারী

নেত্রকোনা

নোয়াখালী

পঞ্চগড়

পটুয়াখালি

পাবনা

পিরোজপুর

ফরিদপুর

ফেনী

বগুড়া

বরগুনা

বরিশাল

বাগেরহাট

বান্দরবান

ব্রাহ্মণবাড়িয়া

ভোলা

ময়মনসিংহ

মাগুরা

মাদারীপুর

মানিকগঞ্জ

মুন্সিগঞ্জ

মেহেরপুর

মৌলভীবাজার

যশোর

রংপুর

রাঙামাটি

রাজবাড়ী

রাজশাহী

লক্ষ্মীপুর

লালমনিরহাট

শরীয়তপুর

শেরপুর

সাতক্ষীরা

সিরাজগঞ্জ

সিলেট

সুনামগঞ্জ

হবিগঞ্জ

Flag Counter