শনিবার,  ২৮শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ,  ১৩ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ,  রাত ২:০৯

শরীয়তপুরে সড়কের কাজে অনিয়ম হওয়ায় কাজ বন্ধ করে দিলেন এলাকাবাসী

জানুয়ারি ২০, ২০১৯ , ১১:১৪

স্টাফ রিপোর্টার
শরীয়তপুর-চাঁদপুর আঞ্চলিক মহাসড়কের সংস্কারের কাজে ব্যাপক অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। যার প্রেক্ষিতে ভেদরগঞ্জের নারায়নপুর এলাকার জনগন সড়কের কাজ বন্ধ করে দিয়েছে।

স্থানীয়দের অভিযোগ, শরীয়তপুর থেকে চাঁদপুর ফেরী ঘাট পর্যন্ত ২৭ কিলো মিটার সড়কে বালুর পরিবর্তে মাটি ব্যবহার করা হচ্ছে, সিডিউল মোতাবেক ৭০ শতাংশ পাথর ব্যবহার করার কথা। সেখানে ৭০ শতাংশ পাথরের পরিবর্তে ৩০ শতাংশ পাথর ব্যবহার করছে। সিডিউল মোতাবেক ৩ ইঞ্চি বিটুমিন দেয়ার কথা কিন্তু ঠিকাদার ১ ইঞ্চি বিটুমিন দিয়ে দায়সারা ভাবে সড়কের কাজ সম্পন্ন করছে। অনেক স্থানে বিটুমিন দেয়ার পর রোলার দিয়ে চাপ না দেয়ার কারণে বিটুমিন উঠে যাচ্ছে। সড়কের দুই পাশে পূর্ণ ইট দিয়ে এজিং করার কথা থাকলেও অধিকাংশ স্থানে অর্ধেক সাইজের ইট দিয়ে এজিং দেয়া হয়েছে।

সড়ক ও জনপথ বিভাগ সূত্রে জানা যায়, শরীয়তপুর-চাঁদপুর সড়কে শরীয়তপুর সদর উপজেলার মনোহর বাজার থেকে চাঁদপুর ফেরিঘাট পর্যন্ত ২৭ কিলো মিটার সড়কের অবস্থা খুবই খারাপ ছিল। তার মধ্যে মনোহর বাজার থেকে ভেদেরগঞ্জের নারায়ণপুর পর্যন্ত ১৫ কিলো মিটার সড়ক সংস্কারে জন্য দুটি গুচ্ছ প্রকল্পের মাধ্যমে ঠিকাদার নিয়োগ করা হয়। ২০১৮ সালের ১৮ মার্চ মাসে শহীদ ব্রাদার্স, এস অনন্ত বিকাশ ত্রিপুরা জেভি এবং র‌্যাব আরসি, সরদার এন্টারপ্রাইজ জেভি নামের দুটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে ২৫ কোটি টাকা ব্যায়ে সড়র সংস্কারের কার্যাদেশ দেয়া হয়। র‌্যাব আরসি, সরদার এন্টারপ্রাইজ জেভি নামের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানটি ভেদরগঞ্জের সাজনপুর থেকে নারায়নপুর পর্যন্ত সড়কের কাজ শুরু করেন। সেই কাজে ব্যাপক অনিয়ম হয়েছে বলে অভিযোগ তুলেছে এলাকাবাসী। যার প্রেক্ষিতে এলাকাবাসী ক্ষুব্ধ হয়ে সড়কের কাজ বন্ধ করে দিয়েছেন।

এ বিষয়ে সড়ক ও জনপথ বিভাগের উপ-সহকারী প্রকৌশলী মোঃ রফিকুল ইসলামের সাথে আলাপ কালে তিনি বলেন, সড়কে বালু ও পাথর মিশিয়ে দুই স্তরে ৮ইঞ্চি লেয়ার দেয়া হবে। সেই লেয়ারে ৩০ শতাংশ বালু এবং ৭০ শতাংশ পাথর থাকবে। তার উপর ৩ ইঞ্চি বিটুমিন দিয়ে কার্পেটিং করা হবে। এখানে পাথর আর বালুর মিশ্রনে কিছুটা হেরফের রয়েছে। আমরা বিষয়টি দেখছি।

এ ব্যাপারে র‌্যাব আরসি, সরদার এন্টারপ্রাইজ জেভি নামের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানটি মালিক সিরাজ সরদারের সাথে মুঠোফোনে আলাপ কালে তিনি বলেন, আমাদের বিরুদ্ধে নিন্মমানের কাজ করার যে অভিযোগ উঠেছে তা সঠিক নয়। যদিও আমি কাজের সাইডে নেই। তারপরও বলছি আমরা সঠিক ভাবেই সড়কের কাজ করছি।

শরীয়তপুর সড়ক ও জনপদ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ জাকির হোসেন বলেন, স্থানীয়রা সড়কের কাজ বন্ধ করে দিয়েছে এই খবর পেয়ে আমি তাৎক্ষণিক ভাবে একজন উপ-সহকারী প্রকৌশলীকে পাঠিয়েছি। নিন্মমানের কাজের প্রমাণ পেলে ঠিকাদারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Total View: 1056

    আপনার মন্তব্য





সারাদেশ

কক্সবাজার

কিশোরগঞ্জ

কুড়িগ্রাম

কুমিল্লা

কুষ্টিয়া

খাগড়াছড়ি

খুলনা

গাইবান্ধা

গাজীপুর

গোপালগঞ্জ

চট্টগ্রাম

চাঁদপুর

চাঁপাইনবাবগঞ্জ

চুয়াডাঙা

জয়পুরহাট

জামালপুর

ঝালকাঠী

ঝিনাইদহ

টাঙ্গাইল

ঠাকুরগাঁও

ঢাকা

দিনাজপুর

নওগাঁ

নড়াইল

নরসিংদী

নাটোর

নারায়ণগঞ্জ

নীলফামারী

নেত্রকোনা

নোয়াখালী

পঞ্চগড়

পটুয়াখালি

পাবনা

পিরোজপুর

ফরিদপুর

ফেনী

বগুড়া

বরগুনা

বরিশাল

বাগেরহাট

বান্দরবান

ব্রাহ্মণবাড়িয়া

ভোলা

ময়মনসিংহ

মাগুরা

মাদারীপুর

মানিকগঞ্জ

মুন্সিগঞ্জ

মেহেরপুর

মৌলভীবাজার

যশোর

রংপুর

রাঙামাটি

রাজবাড়ী

রাজশাহী

লক্ষ্মীপুর

লালমনিরহাট

শরীয়তপুর

শেরপুর

সাতক্ষীরা

সিরাজগঞ্জ

সিলেট

সুনামগঞ্জ

হবিগঞ্জ

Flag Counter