রবিবার,  ২৫শে জুলাই, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ,  ১০ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ,  ভোর ৫:২০

শরীয়তপুর-চাঁদপুর ১০ কিমি সেতু বা সুড়ঙ্গ পথ তৈরির চিন্তাভাবনা

ফেব্রুয়ারি ৭, ২০২০ , ০৭:৪৬

স্টাফ রিপোর্টার

♦ সম্ভাব্যতা যাচাইয়ে দরপত্র আহ্বান ♦ পরিবহনে হবে সময় ও টাকার সাশ্রয় ♦ রাজধানীর ওপর কমবে চাপ।

মাত্র ১০ কিলোমিটারের একটি সেতু বা সুড়ঙ্গপথ (টানেল) বদলে দিতে পারে দেশের অর্থনীতির চাকা। দেশের এক প্রান্তের সঙ্গে অন্য প্রান্তের যোগাযোগের ক্ষেত্রে আনতে পারে যুগান্তকারী পরিবর্তন। সময় এবং টাকা দুই-ই বাঁচিয়ে দিতে পারে। একই সঙ্গে তিনটি সমুদ্রবন্দরের মধ্যে সড়কপথে পণ্য পরিবহনে সময় কমিয়ে আনতে পারে। এমনই একটি সেতু বা টানেল নির্মাণের কথা ভাবছে সরকার, যা নির্মাণ হবে দুই জেলা শরীয়তপুর ও চাঁদপুরের মধ্যবর্তী স্থানে মেঘনা নদীতে। এক প্রান্তে শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জ উপজেলার আলুবাজার ফেরিঘাট আর অন্য প্রান্তে চাঁদপুরের হরিণা ফেরিঘাট। দুই ফেরিঘাটের মধ্যে দূরত্ব নদী ও চর মিলিয়ে ১০ কিলোমিটার। এখানে সেতু নির্মাণের সমীক্ষার জন্য দরপত্রও আহ্বান করেছে সেতু বিভাগ। এ দুই ঘাটের দুই প্রান্তেই আঞ্চলিক মহাসড়ক রয়েছে। তার ওপর আবার পদ্মা নদীর শরীয়তপুরের জাজিরা প্রান্তের নাওডোবা থেকে শরীয়তপুর সদর পর্যন্ত চার লেন সড়ক নির্মাণের ডিপিপি প্রস্তুত করেছে সড়ক ও জনপথ অধিদফতর। সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ এবং সেতু মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে। জানা গেছে, দেশের সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থায় আমূল পরিবর্তন আনতে আওয়ামী লীগ সরকারের ১৯৯৬ থেকে ২০০১ মেয়াদকালে বিভিন্ন উদ্যোগ নেয়া হয়। এরই অংশ হিসেবে ২০০১ সালে জাপানি অর্থ সহায়ক সংস্থা (জাইকা) দেশে যে পাঁচটি দীর্ঘ সেতু নির্মাণের পরিকল্পনা দেয় তার মধ্যে শরীয়তপুরের আলুবাজার ফেরিঘাট থেকে চাঁদপুরের হরিণা ফেরিঘাট পর্যন্ত মেঘনা নদীর ওপর সেতু নির্মাণের প্রস্তাব ছিল। আরও যে চারটি সেতু নির্মাণের প্রয়োজনীয়তার ওপর জোর দেয়া হয়, তারই একটি পদ্মা সেতু যা মুন্সীগঞ্জের মাওয়া থেকে শরীয়তপুরের জাজিরা পর্যন্ত নির্মাণের কাজ এখন চলছে। সড়ক খাতের সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আলুবাজার থেকে হরিণা ফেরিঘাট পর্যন্ত নদী ও চর মিলিয়ে ১০ কিলোমিটার সেতু বা টানেল নির্মাণ করা হলে দেশের দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল এবং চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের মধ্যে যোগাযোগ সহজ হয়ে যাবে। একই সঙ্গে চট্টগ্রাম বন্দর, মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরের পণ্য সড়কপথে পরিবহনের ক্ষেত্রেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। তবে যেহেতু এটি একটি বৃহৎ প্রকল্প এবং ব্যয় ও সময়সাপেক্ষ তাই এখন ওই ফেরিপথে ভারী ফেরি দিয়ে যান পারাপারের ব্যবস্থা করা হলে তা-ও ইতিবাচক ফল বয়ে আনবে। একই সঙ্গে দ্রুত ওই পথে সেতু বা টানেল নির্মাণের পরিকল্পনা গ্রহণ করা যেতে পারে। যেটি ধীরে ধীরে বাস্তবায়নে কাজ শুরু করা যাবে। এজন্য এখনই সরকারের একটা সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা গ্রহণ করা জরুরি। সেতু বিভাগ সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, আলুবাজার থেকে হরিণা ঘাট পর্যন্ত সেতু নির্মাণের লক্ষ্যে সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের জন্য সেতু বিভাগ দরপত্র আহ্বান করে গত ডিসেম্বরে। এতে সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের আগ্রহীদের কাছ থেকে আবেদন আহ্বান করা হয়েছে। সাধারণত ৪৫ দিন সময় দেয়া হয় আবেদন জমা দেয়ার জন্য। সেতু বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, আলুবাজার ফেরিঘাট থেকে হরিণাঘাট ফেরিঘাট পর্যন্ত সেতু বা টানেলের দৈর্ঘ্য ১০ কিলোমিটার হলেও এখানে মূল সেতুর দৈর্ঘ্য মাত্র ২ দশমিক ৬৫ কিলোমিটার। বাকিটা চর এলাকা। এখানে নদীর গভীরতাও প্রায় ৬৫ মিটার। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, আলুবাজার থেকে হরিণাঘাট পর্যন্ত সেতু বা টানেল নির্মাণ করা হলে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের খুলনা ও বরিশাল বিভাগের ২২ জেলা, সিলেটের চার জেলা এবং চট্টগ্রাম বিভাগের ১১ জেলার সরাসরি সড়ক যোগাযোগ স্থাপন হবে। এ ক্ষেত্রে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল থেকে চট্টগ্রাম বা সিলেটের সঙ্গে সড়কপথে যোগাযোগ করতে কাউকে রাজধানী ঢাকায় যাতায়াত করতে হবে না। ফলে রাজধানীর ওপর যানবাহনের চাপ যেমন কমবে, তেমন মানুষের চাপও কমবে। একইভাবে চট্টগ্রাম ও সিলেট অঞ্চলের যানবাহন বা লোকজন ঢাকা না গিয়েই দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগ স্থাপন করতে পারবেন। আর চট্টগ্রাম, পায়রা ও মোংলা সমুদ্রবন্দরে পণ্য সড়কপথে পরিবহন করা সহজ হয়ে যাবে। বর্তমানে এ তিন সমুদ্রবন্দরের মধ্যে সড়কপথে যোগাযোগ করতে হলে অবশ্যই রাজধানীর ওপর দিয়ে যাতায়াত করতে হয়। তবে যেহেতু এ মুহূর্তে সেতু বা টানেল স্থাপন করা যাচ্ছে না তাই আরও বেশিসংখ্যক ফেরি এ রুটে চালানো গেলে যানবাহনের চাপ রাজধানীর ওপর অনেকাংশে কমে আসবে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, পদ্মা সেতু নির্মাণের পর মাওয়া-জাজিরা রুটে চলাচলকারী বড় আকারের ফেরিগুলোকে শরীয়তপুরের আলুবাজার থেকে চাঁদপুরের হরিণাঘাট নৌরুটে চালানো যেতে পারে। এতে সময় যেমন বাঁচবে তেমন পণ্য পরবিহনে ব্যয়ও কমে আসবে।

এদিকে সড়ক বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, জাজিরার নাওডোবা থেকে শরীয়তপুরের আলুবাজার পর্যন্ত চার লেনের প্রায় ৫০ কিলোমিটার সড়ক নির্মাণ করা জরুরি। এর মধ্যে নাওডোবা থেকে শরীয়তপুর সদর পর্যন্ত ২৮ কিলোমিটার সড়ক চার লেনে উন্নীতকরণের জন্য ইতিমধ্যে একটি ডিপিপি প্রস্তুত করেছে সড়ক ও জনপথ বিভাগ। শরীয়তপুর থেকে আলুবাজার ফেরিঘাট পর্যন্ত বিদ্যমান আঁকাবাঁকা ৩১ কিলোমিটার সড়ককে দুই লেনের আঞ্চলিক মহাসড়ক হিসেবে উন্নীত করার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিশ্রুতি রয়েছে। এ সড়কের দরপত্র ইতিমধ্যে আহ্বানও করা হয়েছে। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এ সড়ককে সোজা করে করলে দূরত্ব কমে আসবে ২০ থেকে ২৫ কিলোমিটারের মধ্যে। এটিকে আঞ্চলিক সড়ক না করে চার লেনে উন্নীত করে জাতীয় মহাসড়ক করলে তা হবে বেশি কার্যকর। কারণ মেঘনার ওপারে চাঁদপুরের হরিণাঘাট থেকে হাজীগঞ্জ-কুমিল্লা পর্যন্ত আঞ্চলিক মহাসড়ক বিদ্যমান রয়েছে। এ ছাড়া লক্ষ্মীপুর-নোয়াখালী-চৌমুহনী-ফেনী হয়ে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে যুক্ত হওয়া বিদ্যমান সড়কটিও আঞ্চলিক মহাসড়ক, যা আগামীতে চার লেনে উন্নীত হবে।

Total View: 470

    আপনার মন্তব্য





সারাদেশ

কক্সবাজার

কিশোরগঞ্জ

কুড়িগ্রাম

কুমিল্লা

কুষ্টিয়া

খাগড়াছড়ি

খুলনা

গাইবান্ধা

গাজীপুর

গোপালগঞ্জ

চট্টগ্রাম

চাঁদপুর

চাঁপাইনবাবগঞ্জ

চুয়াডাঙা

জয়পুরহাট

জামালপুর

ঝালকাঠী

ঝিনাইদহ

টাঙ্গাইল

ঠাকুরগাঁও

ঢাকা

দিনাজপুর

নওগাঁ

নড়াইল

নরসিংদী

নাটোর

নারায়ণগঞ্জ

নীলফামারী

নেত্রকোনা

নোয়াখালী

পঞ্চগড়

পটুয়াখালি

পাবনা

পিরোজপুর

ফরিদপুর

ফেনী

বগুড়া

বরগুনা

বরিশাল

বাগেরহাট

বান্দরবান

ব্রাহ্মণবাড়িয়া

ভোলা

ময়মনসিংহ

মাগুরা

মাদারীপুর

মানিকগঞ্জ

মুন্সিগঞ্জ

মেহেরপুর

মৌলভীবাজার

যশোর

রংপুর

রাঙামাটি

রাজবাড়ী

রাজশাহী

লক্ষ্মীপুর

লালমনিরহাট

শরীয়তপুর

শেরপুর

সাতক্ষীরা

সিরাজগঞ্জ

সিলেট

সুনামগঞ্জ

হবিগঞ্জ

Flag Counter